র্জিলিং জ্বলছে! পুলিশ খুন, গুলিতে ২ মোর্চা কর্মীর মৃত্যু, নামল সেনা

র্জিলিং জ্বলছে! পুলিশ খুন, গুলিতে ২ মোর্চা কর্মীর মৃত্যু, নামল সেনা
দার্জিলিং জ্বলছে! পুলিশ খুন, গুলিতে ২ মোর্চা কর্মীর মৃত্যু, নামল সেনা
ক্রাইমবার্তা  ডেস্ক: রিপোট:  ক্রমশ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে পাহাড়ের পরিস্থিতি। আগুন জ্বলছে ক’দিন ধরেই। আজ রক্তেও ভাসল দার্জিলিং। সকাল থেকে পুলিশ আর মোর্চা সমর্থকদের দফায় দফায় তুমুল সংঘর্ষ চলেছে। তার মধ্যেই সিংমারি পুলিশ ক্যাম্পে ঢুকে কিরণ তামাঙ্গ নামে পুলিশের এক অ্যাসিস্ট্যান্ট কমান্ডান্টকে খুকরি দিয়ে কুপিয়ে মারে এক দল মোর্চা সমর্থক। অন্য দিকে সেন্ট জোসেফ কলেজের সামনে পুলিশের গুলিতে দু’জনের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি মোর্চার। মোর্চা নেতা বিনয় তামাং-এর দাবি, আরও পাঁচ মোর্চা সমর্থক গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। যদিও গুলি চালানোর কথা স্বীকার করেনি পুলিশ। উল্টে মোর্চা সমর্থকরাই গুলি চালিয়েছে বলে দাবি এডিজি (আইনশৃঙ্খলা) অনুজ শর্মার। ঘুমেও পুলিশ গুলি চালিয়েছে বলে অভিযোগ।

গত বৃহস্পতিবার বিমল গুরুঙ্গের অফিসে আচমকা পুলিশি তল্লাশির পর নতুন উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল পরিস্থিতি। এর পর শুক্রবার মধ্যরাতে মোর্চা নেতা বিক্রম রাইকে তাঁর বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ। সেন্ট জোসেফ কলেজের অধ্যাপক বিক্রম গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার মিডিয়া অ্যাডভাইজার। তাঁর বাবা অমর রাই দার্জিলিঙের মোর্চা বিধায়ক। বিক্রমকে আটক করার পাশাপাশি কাল রাতেই পুলিশ তল্লাশি চালায় বিমল গুরুঙ্গের ঘনিষ্ঠ বিনয় তামাঙ্গের বাড়িতে। বিনয়ের অভিযোগ, পুলিশের সঙ্গে তাঁর বাড়িতে ঢুকে ভাঙচুর চালিয়ে গেছেন কিছু তৃণমূল সমর্থক।

এই দুই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শনিবার সকাল থেকে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সিংমারি এলাকা। গেলমাল, উত্তেজনা ছড়াতে থাকে অন্যত্রও। ক্রমশ রণক্ষেত্রের চেহারা নিতে থাকে পাহাড়। কয়েক হাজার মোর্চা সমর্থক পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টি করতে থাকেন। পরিস্থিতি সামলাতে গিয়ে লাঠিচার্জ করতে গিয়েও পিছিয়ে যেতে হয় পুলিশকে।

সূত্র: আনন্দবাজার

Please follow and like us:
Facebook Comments