সাতক্ষীরায় অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী অপহরণ !

ক্রাইমবার্তা রিপোট:সাতক্ষীরায় অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রীকে অপহরন করেছে কতিপয় যুবক । এ ঘটনায়   ঐ স্কুলছাত্রীর পিতা সাতক্ষীরা শহরের সুলতানপুন এলাকার ইয়াছিন আলী বাদী হয়ে সদর থানায় এজাহার দায়ের করেছে । তবে অপহরন হওয়া স্কুল ছাত্রী কোন সন্ধ্যান পাওয়া যায়নি আজও ।27
রোববার সাতক্ষীরা শহরের সুলতান পুর এলাকার ইয়াছিন আলীর পুত্র রিংকু প্রেসক্লাবে এসে জানায়, তার বোন সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীতে পড়াশুনা করে । তাদের বাড়ির পাশে আশাশুনি উপজেলার আনুলিয়া উইনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বাড়ি । চেয়ারম্যানের বাড়িতে কাজ করত আশাশুনি উপজেলার বিছট গ্রামের নূর আলীর পুত্র আলমগীর হোসেন । স্কুলে যাওয়ার পথে তার বোনকে দেখে আলমগীর হোসেন ইয়ার্কি আড্ডা মারত । আজে বাজে কথাও বলত । বিষয়টি জানাজানি হয়ে যাওয়ার পর আলমগীর হোসেনকে  তার বোন উত্্যাক্ত করতে নিষেধ করে দেয়। এত আলমগীর হোসেন আরও ক্ষিত হয়ে উঠে এবং তার বোনকে অপহরণ করার হুমকি দেয় । ঈদের দিন বিকালে ভাগ্নে মো: তৌহিদকে নিয়ে বাড়ির পাশে রাস্তায় ঘুরতে আসে রিংকুর বোন। এসময় আলমগীর হোসেন , আশাশুনি উপজেলার বিছট গ্রামের শওকাত হোসেন , মিলন , একই উপজেলার একসরা গ্রামের রুহুর কুদ্দুস, আবু মুসা, মন্টু ও সোনা এবং শহরের সুলতানপুর এলাকার সালাউদ্দীন,  মুকুল ,সালমা  মিলে বাড়ির পাশের রাস্তা থেকে তার বোনকে জোর পূর্বক অপহরণ করে । এসময় তার ভাগ্নে বাড়ি যেয়ে বিষয়টি জানায় । তার পর থেকে বাড়ির লোকজন তার বোনকে খোজা খোজি করতে থাকে ।  অনেক খোজা খুজির পর আজ ও পর্যন্ত  বোনের কোন সন্ধ্যান পায়নি রিংকুরা । এঘটনায় রিংকুর পিতা ইয়াছিন আলী বাদী  হয়ে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছে ।
সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মারুফ জানান , সদর থানা বিজি থানা । প্রতিদিন অনেক অভিযোগ আসে ।  এ ঘটনায় মামলা হয়েছে কিনা এখন বলতে পারবো না । কোন অফিসার এটি তদন্ত করছেন সেটি জেনে পরে জানাবো ।

 

Please follow and like us:
Facebook Comments