শোক দিবসের চাঁদায় ‘নির্বাচনী ফান্ড’

জাতীয় শোক দিবস পালনকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম বন্দর কর্মচারী পরিষদের (সিবিএ) বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। বন্দরের শ্রমিক-কর্মচারীদের ওপর নির্ধারিত হারে চাঁদা ধার্য করা হয়েছে। এ চাঁদার টাকায় ২টি গরু ও ৮টি ছাগল দিয়ে মেজবানের আয়োজন করার অভিযোগ রয়েছে। সূত্র বলছে, ২৪ আগস্ট বন্দর সিবিএ’র নির্বাচন। মূলত শোক দিবসের নামে চাঁদা নিয়ে তারা মেজবানের পাশপাশি ‘নির্বাচনী ফান্ড’ গঠন করছেন। মেজবানও দেয়া হচ্ছে ভোটারদের প্রভাবিত করতে।

বন্দর সিবিএ’র সাধারণ সম্পাদক ফখরুল ইসলাম চাঁদাবাজির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, শোক দিবস পালনের জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষই সিবিএর জন্য ফান্ড অনুমোদন করেছে। সিবিএ সদস্যদের চাঁদা শোক দিবসসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ব্যয় করা হয়। শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত মেজবানের জন্য কোনো চাঁদা নেয়া হচ্ছে না। মূলত নির্বাচন সামনে আসায় একটি মহল এ নিয়ে বিভ্রান্তি ও অপপ্রচার চালাচ্ছে।

সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম বন্দরে ওয়ানস্টপ সেন্টারে ১৩৫ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন। প্রত্যেককে ১ হাজার টাকা করে চাঁদা দেয়ার জন্য মৌখিক নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া টিএম ভবনসহ অন্যান্য বিভাগে কর্মরত কর্মচারীদের কাছ থেকেও ৫০০ থেকে এক হাজার টাকা চাঁদা ধার্য করা হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক টিএম ভবনের এক কর্মচারী শনিবার যুগান্তরকে জানান, তিনি নিজেও ৫০০ টাকা চাঁদা দিয়েছেন। বন্দরে কর্মরত কয়েক হাজার কর্মচারীকে টার্গেট করা হয়েছে চাঁদার জন্য। ওয়ানস্টপ সেন্টারে কর্মরত কর্মচারীদের কাছ থেকে টাকা তোলার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে মোস্তফা ফরিদুর রেজা নামে এক কর্মচারীকে। তিনি সবাইকে শোক দিবসের মেজবানের জন্য এক হাজার টাকা করে দেয়ার জন্য কর্মচারীদের মৌখিকভাবে নির্দেশ দেন এবং এয়াকুব নামে অপর এক কর্মচারীসহ দু’জন মিলে এ টাকা তুলছেন বলে একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়। তবে মোস্তফা চাঁদা তোলার কথা অস্বীকার করে শনিবার বিকালে যুগান্তরকে বলেন, আমি কাউকে কোনো চাঁদার জন্য বলিনি। নিজেও কারও কাছ থেকে কোনো চাঁদা তুলিনি। কেন্দ্রীয় সিবিএ নেতারা এসব জানেন। চাঁদা তোলার বিষয়টি রিউমার হতে পারে বলে জানান তিনি।

বন্দরের সাধারণ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জানান, ২৪ আগস্ট চট্টগ্রাম বন্দর সিবিএর নির্বাচন। শনিবার ঘোষণা করা হয়েছে নির্বাচনী তফসিল। মূলত শোক দিবস পালনের নামে চাঁদা তুলে বর্তমান নেতৃত্বের দাবিদার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ‘নির্বাচনী ফান্ড’ গঠনের কৌশল গ্রহণ করেছেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের শোক দিবসের নামে কোনো ধরনের চাঁদাবাজি না করার নির্দেশ দিয়েছেন। একই নির্দেশ দিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীনও। তিনি শোক দিবসের নামে মেজবান না করে দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

Please follow and like us:
Facebook Comments