শ্যামনগরে কৃষি কাজে ব্যাপক সফলতা পেয়ে ভাগ্যবদল গোলাম মোস্তফার

মোস্তফা কামাল-শ্যামনগর (সাতক্ষীরা) :সাতক্ষীরার শ্যামনগরের গোলাম মোস্তফা এখন সফল কৃষক। কৃষি কাজে ব্যাপক সফলতা পেয়ে ভাগ্যবদল হয়েছে। ৭ বিঘা জমিতে সবজি চাষ ও পুকুরে সমন্বিত মৎস্য চাষ করে ৬ মাসের ব্যবধানে সফলতা লাভ করেছে এই কৃষক। গোলাম মোস্তফা শংকরকাটি গ্রামের আব্দুল গফুরের পুত্র। গোবিন্দপুর ব্লকের শংকরকাটি গ্রামে ৭ বিঘা জমির মধ্যে ৪ বিঘা পরিমান একটি পুকুর খনন করে রুই ,কাতলা, মৃগেল সহ বিভিন্ন প্রজাতির মৎস্য চাষ করে এবং পুকুরের পাড়ে সবজি চাষ কওে সফলতা পেয়েছে। পুকুরের পানি দ্বারা অবশিষ্ট জমিতে ফুল কপি,বিট কপি, বাঁধা কপি, পালং শাক, শিম, সরিষা, বেগুন, কাঁচাঝাল, লাউ, পুইশাক, ঢেঁড়শ, টমেটো লাগিয়ে বাম্পার ফসল পেয়েছে। ক্ষেতের চারিপাশে পেঁপেঁ, নারিকেল গাছ, মেহগনি, কুলগাছ,কদবেল সহ বিভিন্ন জাতের গাছ লাগানো হয়েছে। এ মৌসুমের প্রথম দিকে সবজীর দাম বেশি হওয়ায় প্রচুর অর্থ উপার্জন করেছে। 12সম্পন্ন রাসায়নিক সার ছাড়াই জৈব সার দিয়ে অভূতপূর্ব ফলন হওয়ায় দাম পেয়েছে বেশ চড়া। কৃষি উপ-সহকারী কর্মকর্তা মোঃ শামসুর রহমানের সার্বিক দিক নির্দেশনায় ৫ জন কৃষক নিয়ে সার্বক্ষনিক ক্ষেতে কাজ করায় ফসল বাম্পার হয়। বিল জমিকে উঁচু ভিটায় রুপান্তরিত করতে এবং প্রথম পর্যায়ে বড় ধরনের পরিকল্পনায় কৃষি ক্ষেতে কাজ করতে কয়েক লক্ষ টাকা খরচ হয়। গোলাম মোস্তফা বিভিন্ন সমিতি ও ব্যক্তির কাছ থেকে ঋণ নিয়ে তার এ কাজ করতে কয়েক লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। বৈজ্ঞানিক বা আধুনিক পদ্ধতিতে কৃষি কাজ করা ছাড়াও ঐ জমিতে গরুর ফার্ম করতে পরিকল্পনা শুরু করেছেন। পর্যাপ্ত আর্থিক সহায়তা পেলে তার ফার্ম কাজটি শেষ হবে। গোলাম মোস্তফার এ ধরনের কার্যক্রম বিভিন্ন সরকারী ও বে-সরকারী কর্মকর্তারা ছাড়াও শ্যামনগর উপজেলা প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা তার কৃষি ক্ষেতে সরেজমিনে গিয়ে চোখ ধাঁধানো ফসল দেখে মুগ্ধ হয়েছেন। বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রত্যহ কয়েক ডজন চাষীরা তার কর্মকান্ড দেখতে ভিড় জমাচ্ছে।গোলাম মোস্তফার কর্মকান্ড এলাকার একটা মডেল, কৃষিখাতে তার দক্ষতা সত্যিই প্রশংসনীয়। কৃষক গোলাম মোস্তফা বলেন, আমি এ ধরনের কার্যক্রম অব্যহত রাখবো,তবে সরকারী বে-সরকারী সুযোগ সুবিধা পেলে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সহায়ক হবে।

 

 

 

Please follow and like us:
Facebook Comments