চাঁদাবাজি থেকে বাঁচতে গিয়ে কিশোরকে ট্রাকচাপা, ৪ পুলিশকে গণপিটুনি

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের সীতাকু- উপজেলার ফৌজদার হাটে পুলিশের চাঁদাবাজি থেকে রক্ষা পেতে পালিয়ে যাওয়ার সময় ট্রাকের নিচে পিষ্ট হয়ে এক কিশোর নিহত হয়েছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুলিশকে গণপিটুনি দিয়েছে স্থানীয় জনতা। এতে অন্তত ৪ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে।
মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় ফৌজদার হাট টোল সড়কের মুখে এ ঘটনা ঘটে। নিহত কিশোরের নাম তারেক রহমান (১৩)। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়েছে।
এদিকে গণপিটুনিতে আহত  দুই পুলিশকে ভাটিয়ারীস্থ বিএসবি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হলেন জেলা হাইওয়ে পুলিশের সদস্য আলমগীর হোসেন ও আবুল হোসেন। প্রাথমিক চিকিৎসা নেয়া অন্য দুই পুলিশের নাম পরিচয় জানা যায়নি।
প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানান, বন্দর টোলরোড়ে ফৌজদারহাটের মুখে চেকপোস্টে গাড়ি তল্লাশীর নামে হাইওয়ে পুলিশের একটি টিম প্রতিনিয়ত চাঁদা আদায় করে আসছে। এনিয়ে প্রায় প্রতিদিনই এলাকায় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে চলছে। পুলিশের চাঁদাবাজির কারণে পরিবহন শ্রমিক ও এলাকাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে উঠে।
স্থানীয় সাগর পাড়ের বাসিন্দা সুলতান আহমদ জানান, আজ সকালে বেড়িবাঁধে বাইপাস সড়কের মোড়ে টোল রোড়ে চট্টগ্রাম বন্দরের দিক থেকে একটি ট্রাক আসে। পুলিশকে দেখে চাঁদাবাজি থেকে রক্ষা পেতে বেপরোয়া গতিতে চলে যাওয়ার সময় স্থানীয় চা দোকানি আলী আকবরের স্কুল পড়–য়া কিশোর পুত্র তারেক রহমানকে চাপা দিয়ে (সিলেট ড-১১-০৫৪১) রাস্তার পাশে খাদে উল্টে পড়ে যায়। এতে গুরুতর আহত ছেলেটিকে উদ্ধার করে হাসপাতলে নিয়ে যায়।
এ ঘটনায় এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশকে ধাওয়া দিয়ে ধরে পিটুনি দিয়ে আহত করেছে। জনতার মার খেয়ে ৩/৪ জন জন পুলিশ আহত হয়েছে। পরে খবর পেয়ে সীতাকু- থানা এবং দাঙ্গা পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচাজ জহিরুল ইসলাম জানান, ফৌজদার হাটে ট্রাক চাপায় আহত কিশোর বেলা ১২টার দিকে ২৬ নাম্বার ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।
এদিকে ঘটনার পর পরই জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউল মাসুদ ও সীতাকু- থানার ভারপ্রাপ্ত  কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে যান। তারা এলাকাবাসীর সাথে কথা বলেন। এবং তাদের শান্ত থাকার অনুরোধ জানান। ঘটনা সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে অপরাধীদের বিচারের আশ্বাস দেন।
ঘটনার ব্যাপারে জানতে চাইলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউল মাসুদ বলেন, দুর্ঘটনায় এক শিশু মারা যাওয়ার ঘটনা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে এলাকার লোকজনের সঙ্গে সমস্যা হয়েছে। এতে দুই পুলিশ সামান্য আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। বড় কোনো ঘটনা না।

Please follow and like us:
Facebook Comments