ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের প্রতিবাদে মুসল্লিদের বিক্ষোভ-সংঘর্ষ, নিহত দুই, গুলিবিদ্ধ ৫, ১০ পুলিশসহ আহত ৪০

ক্রাইমবার্তা ডেস্করিপোর্ট:রংপুর: রংপুরে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে এক যুবক কর্তৃক ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার প্রতিবাদে পাগলাপীর এলাকায় রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। এসময় পুলিশের সঙ্গে মুসল্লিদের ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে গুলিতে দুইজন নিহত ও পাঁচজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার প্রতিবাদে চলা বিক্ষোভ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় ১১ টি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় ১০ পুলিশসহ অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। আজ শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর থেকে এ সংঘর্ষ শুরু হয়।
জানা গেছে, পুলিশ ও মুসল্লিদের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত একজনের নাম হাবিব (২৭)। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, জুমার নামাজের পর রংপুর সদর উপজেলার খলেয়া ইউনিয়নের শলেয়া শাহ বাজারে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ রাবাট বুলেট ও টিয়ারশেল ছুড়েছে। এ সময় বিক্ষুব্ধ মুসল্লিরা ওই এলাকার ঠাকুরপাড়ার কয়েকটি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করেছে।

স্থানীয়রা আরও জানান, কয়েকদিন আগে ওই এলাকার টিটু চন্দ্র নামে এক ব্যক্তি মহানবীকে (সাঃ) নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তি ও আপত্তিকর ছবি পোস্ট করে। এরই প্রতিবাদে শুক্রবার জুমার নামাজের পর স্থানীয় মুসল্লিরা এক জোট হয়ে পাগলাপীর বাজারে মানববন্ধন শুরু করেন। এ সময় ওই কর্মসূচিতে সংহতি জানিয়ে আশপাশের কয়েক হাজার মুসল্লি সমবেত হন। একপর্যায়ে বিক্ষুব্ধ মুসল্লিরা ঠাকুরপাড়ার দিকে অগ্রসর হতে থাকলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এতে পুলিশের সঙ্গে মুসল্লিদের সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় মুসল্লিরা ওই পাড়ার তিনটি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ শতাধিক রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। আহতদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

Please follow and like us:
Facebook Comments