ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত: রংপুরের সেই টিটু রায় নীলফামারীতে আটক

ক্রাইমবার্তা রিপোর্ট:রংপুর: সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ইসলাম ধর্ম ও নবীকে নিয়ে অবমাননাকর স্ট্যাটাস দিয়ে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের ঘটনায় ব্যাপক সহিংসতার পর হিন্দু যুবক টিটু চন্দ্র রায়কে (৪০) আটক করেছে পুলিশ।

নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলা থেকে সোমবার রাতে তাকে আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি গোলাম ফারুক।
এদিকে মঙ্গলবার গঙ্গাচড়া উপজেলার খলেয়া ইউনিয়নের ঠাকুরপাড়া এলাকার হরকলি মাদ্রাসা মাঠে রংপুর জেলা পুলিশ আয়োজিত ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি সমাবেশে’র আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালও টিটুকে আটকের বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান।
গঙ্গাচড়া উপজেলার হরকলি ঠাকুরপাড়া এলাকার গ্রামের মৃত খগেন রায়ের ছেলে টিটু রায় ৫ নভেম্বর ফেসবুকে ‘ধর্মীয় অবমাননাকর’ স্ট্যাটাস দেন বলে অভিযোগ ওঠে।
এ ঘটনায় গত শুক্রবার ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার প্রতিবাদে স্থানীয় মুসল্লিরা রংপুরের পাগলাপীর এলাকায় রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে। এ সময় পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এতে পুলিশের সঙ্গে মুসল্লিদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। নিহত হন একজন। এছাড়া পুলিশসহ আহত হন আরও অর্ধশত।

এরই মধ্যে হিন্দু বাড়ি-ঘরে আগুন ও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ানো অভিযোগে পুলিশের পক্ষ থেকে দুই হাজার মুসল্লির বিরুদ্ধে দুটি মামলা ও ১৩০ জন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৪ কিশোরকেও ছাত্রশিবিরের কর্মী দাবি করে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এদিকে, ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আজ মঙ্গলবার সেখানে গেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও পুলিশ মহাপরিদর্শক একেএম শহিদুল হক।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এখানে কেউ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করলে মেনে নেয়া হবে না, কঠোরভাবে মোকাবিলা করা হবে।
তিনি বলেন, রংপুরের ঘটনায় পুলিশের বিরুদ্ধে গাফিলতির কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। পাওয়া গেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি সমাবেশে সভাপতিত্ব করছেন জেলা পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান। সমাবেশে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়–সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি টিপু মুনশি, পুলিশের মহাপরিদর্শক শহীদুল হক, উপমহাপরিদর্শক খন্দকার গোলাম ফারুক, রংপুর বিভাগীয় কমিশনার কাজী হাসান আহমেদ, রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজউদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Please follow and like us:
Facebook Comments