পাটকেলঘাটা কলেজ থেকে কুমিরা বাজার পর্যন্ত সড়কে বালু ও কাঠের গুড়ি

পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি: খুলনা সাতক্ষীরা মহাসড়কের পাটকেলঘাটা কুমিরা মহিলা ডিগ্রী কলেজ থেকে পাটকেলঘাটা হারুন অর রশিদ ডিগ্রী কলেজ পর্যান্ত ৩ কি.মি. রাস্তার দু পাশে কাঠের গুড়ি,ইটের টুকরা ও বালির স্তুপ এর জন্য নিত্য নতুন সড়ক দূর্ঘটনা ঘটছে। দেখার কেউ নেই। মহাসড়কের দু পাশে রাস্তার পিচের উপর কাঠের গুড়ি, ইট,খোয়া ও বালি রাখতে দেখা যায়। যাহাতে সব সময় যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। ট্রাক ভর্তি কাঠের গুড়ি, ইট ও বালি নিয়ে রাস্তার উপর যখন ট্রাক ড্রাইভার দাঁড়িয়ে থাকে তখন অপর পাশ দিয়ে অন্য কোন ভারী যানবাহন যাওয়ার জায়গা থাকে না। এদিকে বাস, ভ্যান, মোটরসাইকেল, মহেন্দ্র, ইজি বাইক,সহ নিত্য নতুন যানবাহন চলাচল করে ঝুকি নিয়ে। অসংখ পথচারীরা জানান, পাটকেলঘাটা কুমিরা মহিলা ডিগ্রী কলেজ থেকে হারুন অর রশিদ ডিগ্রী কলেজ পর্যন্ত এত যানজট আর কোথাও দেখেনি।ভ্যান চালক আঃ কাদের বলেন আমাদের বলার কিছু নেই কারন আমরা ও চালক তবে মহাসড়কের দু পাশে রাস্তার উপর কাঠের গুড়ি,ইট ও বালি স্তপের জন্য আমাদের ও চলাচলের ব্যাপক ভোগান্তি হতে হচ্ছে। মাঝে মধ্যে কোন কোন জায়গায় যানজটের কারনে যাত্রী নিয়ে অনেক ক্ষন দাঁড়িয়ে থাকতে হয়।
দাদপুর গ্রামের এরফান (৭০) ট্রাকের ধাক্কায় কুমিরা কদম তলা নামক স্থানে মর্মান্তিক ভাবে নিহত হয়। কুমিরা মনোহরপুর গ্রামের জব্বার আলি বিশ্বাসের পুএ রহিম (৫২)ও একই গ্রামের হাতেম আলির পুএ এয়াকুব (৪৩) কুমিরা হাই স্কুলের সামনে ট্রাকের ধাক্কায় নিহত হয়। ধলবাড়িয়া গ্রামের ফজর আলি সরদারের পুএ মুস্তাফিজুল রহমান একই ভাবে ট্রাকের ধাক্কায় আহত হয়ে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। এছাড়া প্রতিদিন নিত্য নতুন সড়ক দূর্ঘটনা তো লেগেই রয়েছে। অপর দিকে কুমিরা বাজারে একাধিক ক্রেতা বিক্রেতা তারা রাস্তার উপর এসে ভীড় জমায়। তাছাড়া ব্রীজের উপর সব সময় তো যানজট লেগেই আছে। তাই এলাকা বাসী উর্দ্ধতম কর্মকর্তাদের সুদৃষ্টি কামনা করছে যাহাতে মহাসড়কের পাশে কেউ কাঠ, ইট ও বালি না রাখে।

Please follow and like us:
Facebook Comments