সাতক্ষীরার সড়ক সংস্কারের  দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন

ক্রাইমবার্তা রিপোর্ট:: সাতক্ষীরার সড়ক সংস্কারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে সাতক্ষীরা জার্নালিস্ট ক্লাব, ঢাকা। শনিবার (৩০ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বেলা ১২ টায় এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি শেখ নজরুল ইসলাম। সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামানের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সংগঠনের উপদেষ্ঠা এবং সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী সৈয়দ দিদার বখত্। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, সাতক্ষীরা জার্নালিস্ট ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক মামুনুর রশিদ, অর্থ সম্পাদক গাজী শাহ নেওয়াজ, দপ্তর সম্পাদক রহমান আজিজ, কার্যনির্বাহী সদস্য মাসুদ, নাসিরউদ্দীন, সাতক্ষীরা জেলা জন সমিতির সভাপতি রেজওয়ান খান মুন্না ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল রাজ্জাক, তালা উপজেলা সমিতির সভাপতি এ্যাড. শহিদুল হক ও সাধারণ সম্পাদক রেজাউল হক রেজা, শ্যামনগর উপজেলা সমিতির সভাপতি এবং সাবেক সাতক্ষীরা জেলা জন সমিতির সভাপিত ডা. আব্দুল জলিল ও সাধারণ সম্পাদক সামছুল আলম, জগনাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাসরিন ফারহানা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এম এল মারুফ-উল ইসলাম, সূর্যসেন হল ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শরিফুল আলম, ও উপ-শিক্ষা ও পাঠচক্র সম্পাদক সাব্বির আহমেদ, বঙ্গবন্ধুল হল ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইসরাফিল হোসেন ও মুক্তিযোদ্ধা সম্পাদক ফিরোজ আলী, জিয়া হলের দপ্তর সম্পাদক অনিন্দ্য জাহিদ প্রমুখ।
সৈয়দ দিদার বখত্ বলেন, মধ্যম আয়ের দেশ গড়তে হলে উন্নয়নের সুতিকাগার এবং বিশ্বের অন্যতম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবনকে অবহেলা করে করা সম্ভব নয়। এখান থেকে সরকারের রাজস্ব আয়ের সম্ভবনা প্রবল। সুন্দরবনকে কাজে লাগাতে পারলে মধ্যম আয়ের দ্বায়প্রান্তে পৌছানো আয়ো সহজ হবে। সেজন্য সাতক্ষীরার রাস্তাঘাটতের সংস্কার জরুরি। সরকারকে সেদিকে খেয়াল রাখার জন্য আহবান জানান তিনি।
সভাপতির বক্তব্যে নজরুল ইসলাম বলেন, সাতক্ষীরায় মেডিকেল কলেজ, ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি, টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার ও যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন এবং শ্যামনগর কলেজ জাতীয়করণসহ বেশ বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে বর্তমান সরকার। কিন্তু সরকারের সব উন্নয়ন কর্মকান্ড ম্লান করে দিচ্ছে জেলার বেহাল সড়ক ও যোগাযোগ ব্যবস্থা। এতে একই সাথে বাধাগ্রস্থ হচ্ছে সাতক্ষীরার সম্ভাবনাময় পর্যটন শিল্প ও ব্যবসা-বাণিজ্য।
বক্তরা আরো বলেন, সাতক্ষীরা মহাসড়ক থেকে শুরু করে জেলা উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। অল্প বৃষ্টিতে রাস্তার ওপর পানি জমে থাকে। ঠিকাদারি কাজে অনিয়মের কারণে বছরের অধিকাংশ সময় সড়ক-মহাসড়কগুলোর অবস্থা বেহাল থাকে।
বক্তারা বলেন, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সবচেয়ে ব্যস্ততম সড়কের মধ্যে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দর থেকে খুলনা এবং সাতক্ষীরা থেকে যশোর মহাসড়ক অন্যতম। ভোমরা স্থলবন্দর থেকে পণ্যবাহী ট্রাকসহ হাজার হাজার বাস-ট্রাক-পিক আপ চলাচল করে এ মহাসড়কে। বর্তমানে যানবাহনের চাপ আরও বেড়েছে। নির্মাণের ছয় মাস যেতে না যেতেই সাতক্ষীরা শহর থেকে মেডিক্যাল কলেজ, নিউমার্কেট থেকে চায়না-বাংলা মোড়, হাসপাতাল মোড়, বাস টার্মিনাল ও বিজিবি হেড কোয়ার্টার্স হয়ে তালতলা পর্যন্ত ৭ কি.মি. রাস্তা যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। খানা খন্দে ভরা মহাসড়কের এইসব অংশটি সংস্কার না হওয়ায় দুর্ভোগের অন্ত নেই পথচারীদের।
তারা বলেন, সাদা সোনা খ্যাত এই সাতক্ষীরার সড়ক ও যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল না থাকায় সরকার অনেক রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অবিলম্বে সড়ক সংস্কারের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সড়ক যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের প্রতি আহবান জানান বক্তারা।
এছাড়া অনুষ্ঠানে ঢাকাস্থ সাতক্ষীরা জেলার বিভিন্ন পেশাজীবি সংগঠন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগনাথ বিশ্ববিদ্যালয় এবং ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।৩০ডিসেম্বর,২০১৭শনিবার:ক্রাইমর্বাতা.কম/প্রতিনিধি/আসাবি

Please follow and like us:
Facebook Comments