তালায় আজ থেকে শুরু হচ্ছে মাস ব্যাপী কবি সিকান্দার আবু জাফর মেলা

মনিরুজ্জামান মনি সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : বাংলা সাহিত্যের উজ্জ্বল নক্ষত্র কবি সিকান্দার আবু জাফরের ৯৯ তম জন্ম দিন উপলক্ষ্যে আজ থেকে শুরু হচ্ছে মাস ব্যাপী আবু জাফর মেলা। আজ শুক্রবার সন্ধ্যা ৬ টায় কবির জন্ম ভিটা তালার তেঁতুলিয়া গ্রামে এ মেলার শুভ উদ্বোধন করা হবে। সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন ও জেলা শিল্পকলার একাডেমীর যৌথ উদ্যোগে মাস ব্যাপী মেলার আয়োজন করা হয়েছে। মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নবাগত সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইফতেখার হোসেন-এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন সাতক্ষীরা-১, তালা-কলারোয়া আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. মুস্তফা লুৎফুল্লাহ। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার সাজ্জাদুর রহমান, সাবেক প্রতিমন্ত্রী কবি পরিবারের সদস্য সৈয়দ দিদার বখ্ত, সাতক্ষীরা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ জাকির হোসেন, তালা উপজেলা চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার, তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ হোসেন।
উদ্বোধনী মেলার অনুষ্ঠানে ৭ টায় আলোচনা সভা ও রাত্র ৯ টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। সরজমিনে অনুসন্ধানে গিয়ে মেলা প্রাঙ্গন ঘুরে দেখা গেছে, দ্বিতীয় বারের মতো সরকারীভাবে এ মেলার প্রস্তুতি চলছে। মেলা প্রাঙ্গনের আশে পাশে রয়েছে সাজ-সাজ রব ও উৎসব মুখোর পরিবেশ। স্থানীয় সুধী মহলের দাবি উপমহাদেশের প্রথিতযশা কবি সিকান্দার আবু জাফরের স্মৃতিকে ধরে রাখতে মাস ব্যাপী সামাজিক মেলার আয়োজনে অনেকটায় আনন্দের বন্যা বইছে। এ মেলাকে ঘিরে জনসাধারণ ও বিনোদন প্রেমিদের আকর্ষিত করতে মেলা প্রাঙ্গনে বসেতে শুরু করেছে বাহারী রকমের পসরা। সার্কাস, মৃত্যুকুপ, সামাজিক যাত্রা পালার প্যান্ডেলসহ কবির কর্ম জীবনের পরিচিতি নিয়ে স্টল। জানাগেছে, ১৯১৯ সালের ১৯ মার্চ তৎকালীন বৃহত্তম খুলনা জেলার অন্তর্ভুক্ত বর্তমান সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী হাশেমী পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন কবি সিকান্দার আবু জাফর। তার পিতা মৃত সৈয়দ মঈনউদ্দীন হাশেমী ও মাতা মৃত জাহেদা খাতুন। সিকান্দার আবু জাফর সহ তারা ছয় ভাই বোন। তার শিক্ষা জীবন কেটেছে প্রবেশিকা, বি.ডি ইনস্টিটিউট তালা ১৯৩৬। আই.এ, রিপন কলেজ, কলকাতা। কর্মজীবন কলকাতার মিলিটারী অ্যাকাউন্টস বিভাগে ১৯৩৯। সিভিল সাপ্লাই অসিফ ১৯৪২। এর পর শুরু করেন সংবাদিকতায় অত্মপ্রকাশ। রেডিও, বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক, সাপ্তাহিক, মাসিক পত্রিকায় তিনি সাংবাদিকতা করেন। সম্পাদনা করেছেন একাধিক পত্রিকায়। যার মধ্যে উল্লেখ যোগ্য দৈনিক নবযুগ, দৈনিক মিল্লাত, দৈনিক ইত্তেফাক ছাড়াও তৎকালীন মাসিক সমকাল পত্রিকায়। সাংবাদিকতার পাশাপাশি লিখেছেন একাধিক নাটক, ছোট গল্প, উপন্যাস, কবিতাসহ নানান বাংলা সহিত্যের শৈলী। তিনি ১৯৬৬ সালে বাংলা একাডেমি কর্তৃক নাটক রচনা করে জাতীয় পুরুস্কারে ভুষিত হয়েছিলেন। জনতার সংগ্রাম চলবেই কবিতায় কবি ১৯৭১ সালে বাঙালীজাতী স্বাধীনতা চাই তা প্রকাশ পেয়েছিল। পাকিস্তানিদের রক্ত চক্ষু উপেক্ষা করে লিখেছিলেন “তুমি আমার আকাশ থেকে সরাও তোমার ছায়া, তুমি বাংলা ছাড়ো” বিখ্যাত বিদ্রহী কবিতা। তিনি বাংলা ও বাঙালি জাতীর জন্য রেখে গেছেন একাধিক দিক নির্দেশনা। সংবাদ পত্র জগতের তিনি এক আলোকবর্তিকা। কবি ঢাকায় অবস্থানরত অবস্থায় ১৯৭৫ সালের ৫ই আগষ্ট মঙ্গলবার অসুস্থ থেকে ঢাকা পিজি হাসপাতালে মৃত্যু বরণ করেন। তাকে শেষ সমাহিত করা হয় বনানী কবরস্থানে। এ কবির জন্মদিন উপলক্ষ্যে তার পরিবার দীর্ঘদিন স্বল্প পরিশরে মেলার আয়োজন করলেও গত দুই বছর যাবৎ উৎযাপিত হচ্ছে সরকারি ভাবে সিকান্দার আবু জাফর মেলা। মেলার আয়োজক কমিটি সদস্য সচিব শেখ মোসফিকুর রহমান মিলটন এ প্রতিবেদকে জানিয়েছেন, প্রতিবছরের ন্যায় কবির জন্মদিনকে ঘিরে এ বছরও সরকারিভাবে বৃহৎ পরিশরে মাসব্যাপী মেলার আয়োজন করা হয়েছে।

Please follow and like us:
Facebook Comments