সাতক্ষীরায় ট্রাক-পিকআপ সংঘর্ষে দাদি-নাতিসহ নিহত ৬:জানাযা শেষে বাড়ি ফেরার পথে হতেহলো লাশ

সারিবদ্ধ ছয়টি তাজা লাশ। এরমধ্যে রয়েছে ফুটফুটে তিন শিশুর লাশও। লাশের পাশে চলছে স্বজনদের আহাজারি। মা রোজিনা আক্তার ডুকরে রোদন করে বলছে, ওই বাড়িতে কি করে উঠবে। আমার দুই কোলের মানিককে হারালাম। আমার শ্বাশুড়িকে নিয়েও বাড়িতে ফিরতে পারলাম না। আল্লাহ তুমি আমার প্রাণের বিনিময়ে কেন আমার দুই কোলের মানিককে বাঁচিয়ে রাখলে না। লাশ দেখতে যেয়ে আমার ছেলে-মেয়ের লাশ নিয়ে ফিরতে হচ্ছে। এদিকে ওবিয়া খাতুন নামের আরেক নারী হতভম্ব হয়ে গেছে। তার চোখে পানি নেই। স্বামী সাইদুলকে চোখের সামনে মরতে দেখে শোকে পাথর হয়ে গেছে স্ত্রী ওবিয়া। তার পাশেই চলছে শোকের মাতম। কে কাকে সান্ত¦না দেবে। সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের গোল চত্তর জুড়ে চলছে এমনি আহজারি। ভিতরে ঢুকতে দেখা গেল সারিবদ্ধ ছয়টি তাজা লাশ। গোটা হাসপাতালে যেন পাথরের নিরবতা। সান্ত¦না দেয়ার ভাষা নেই কারো মুখে। সবার চোখে কান্না। কেউ ডুকরে কাঁদছে, কেউ রোদন করছে। কেউ আল্লারে বলে মূর্ছা যাচ্ছে। দুই সন্তান হারা রোজিনার রোদন থেকে জানা গেল, তার চাচা শ্বশুর খুলনার সাংবাদিক এলাহী বক্সের লাশ দেখতে মঙ্গলবার দুপুরে পরিবারের ১৬ জন খুলনায় যান।
সেখান থেকে জানাজা নামাজ পড়ে বাড়ি ফেরার পথে পাটকেলঘটা এলাকায় মিনি পিকআপ ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে হলে ঘটনাস্থলেই মারা যায় ৬জন। নিহতদের মধ্যে একই পরিবারের তিনজন রয়েছে। এতে সাতজন আহত হয়েছে। রোববার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ভৈরবনগর এলাকায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।
নিহতরা হলেন, কালিগঞ্জ উপজেলার কালিয়াকর গ্রামের মনিরুজ্জামানের ছেলে আশিকুজ্জামান (১২) তার মেয়ে মিম (৩) তার মা আকলিমা খাতুন, নুর বানু, সাইদুল ইসলাম ও সাব্বির হোসেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কালিগঞ্জ থেকে একটি মিনি পিকআপ ভাড়া করে মনিরুজ্জামান তার নিকট আত্মীয়র খুলনায় গিয়েছিলেন তার এক আত্মীয়র নামাজের জানাজায়। ফিরে আসার পথে পাটকেলঘাটার ভৈরবনগর এলাকায় পৌছালে খুলনাগামী একটি ট্রাকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে ছয়জন নিহত ও সাতজন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে চারজনের নাম জানা গেছে। তারা হলেন কালিগঞ্জ উপজেলার তালতলা গ্রামের লিয়াকত আলী (৬০), কালিকাপুর গ্রামের আশরাফুজ্জামান খোকন (৪৫), কালিকাপুর গ্রামের মোহম্মদল আলী (৬০), কালিকাপুর গ্রামের রেকেকা খাতুন (৪০)।
পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা জাকির হোসেন জানান, লাশগুলো উদ্ধার সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহতদেরও একই হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
এদিকে দুর্ঘটনার খবর পেয়ে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক মো. ইফতেখার হোসেনসহ প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তারা ছুটে যান হাসপাতালে। সেখানে নিহতদের পরিবারের সদস্যদের সান্ত¦না দেন জেলা প্রশাসকসহ অন্যরা। আহতদের চিকিৎসার খোজ খবর নেন তিনি।

—–0———-

সাতক্ষীরার পাটকেলঘটার এলাকায় মিনি পিক-আপ ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৭ জন নিহত ও সাত জন আহত হয়েছে। গত কালরাত সাড়ে ৮ টার দিকে ভৈরবনগর এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে।
নিহতরা হলেন, কালিগঞ্জ উপজেলার কালিয়াকর গ্রামের মনিরুজ্জামানের ছেলে আশিকুজ্জামান (১২) তার মেয়ে মিম (৩) তার মা আকলিমা খাতুন, নুর বানু ও সাইদুল ইসলাম ও সাব্বির হোসেন। আহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কালিগঞ্জ থেকে একটি মিনি পিক-আপ ভাড়া করে মনিরুজ্জামান তার নিকট আত্মীয়র খুলনায় গিয়েছিলেন তার এক আত্মীয়র নামাজের জানাজায়। ফিরে আসার পথে পাটকেলঘাটার ভৈরবনগর এলাকায় পৌছালে খুলনাগামী একটি ট্রাকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে ছয়জন নিহত ও সাতজন আহত হয়েছেন।

———–0————-

সাতক্ষীরা সংবাদদাতা: সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা ভৈরবনগর নামক স্থানে ট্রাক-পিকআপের সংঘর্ষে ৭ জন নিহত ও ৭ জন আহত হয়েছে। আহত ৭ জনের মধ্যে ২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদেরকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে সাতক্ষীরার-খুলনা মহাসড়কের পাটকেলঘাটা ভৈরবনগর বয়ারখোলা ব্রিজের নিকট এ দুর্ঘটনা ঘটে।
সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার কালিকাপুর গ্রামের ১২জন লোক পিকআপে(নং-ঢাকা মেট্রো-চ ১৫-৫৯০৩) চড়ে খুলনা থেকে বাড়ি যাচ্ছিল। খুলনা সাতক্ষীরা মহাসড়কের ভৈরবনগর বয়ারখোলা ব্রিজের নিকট পৌছালে ট্রাক-পিকআপের সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে সাব্বির হোসেন(৫), পিতা- শাহীন রেজা, নুরবানু(৫০), স্বামী- হাজী মোহাম্মদ, আকলিমা খাতুন(৫০), স্বামী- রহিম বক্্র, সাইদুর রহমান(৩৫), পিতা- ইউসুফ সরদার, মিম(৭), আসিকুর রহমান(২), উভয় পিতা মনিরুজ্জামান নিহত হয়। পাটকেলঘাটা থানার ওসি মোল্লা জাকির হোসেন জানান, তালা উপজেলার ভৈরবনগর গ্রামে সাতক্ষীরা-খুলনা মহাসড়কে ট্রাক-পিকআপ মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই ছয়জন নিহত ও তিনজন আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

Please follow and like us:
Facebook Comments