অ্যাটর্নি জেনারেলের শুনানিতে খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের আপত্তি

ক্রাইমবার্তা ডেস্করিপোট:   ঢাকা: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দেয়া হাইকোর্টের জামিনের বিরুদ্ধে আপিল শুনানিতে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের বক্তব্যে আপত্তি তুলেছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা।
আজ মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন ৪ সদস্যের আপিল বেঞ্চে এ ঘটনা ঘটে।
এ মামলায় সকাল থেকেই শুনানি করেন দুদক আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। এরপর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম খালেদা জিয়াকে দেয়া হাইকোর্টের জামিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষে আপিল শুনানি করেন।
শুনানিতে মাহবুবে আলম  মামলার নথি থেকে পাঠ করে আদালতকে বলেন, ‘জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা বিচারিক আদালতে চলাকালে ৬৭টি তারিখের মধ্যে খালেদা জিয়া মাত্র আট দিন হাজির হয়েছিলেন। আবার হাজির হলেও বারবার সময় আবেদন করেছেন। মামলার পাঁচ বছর পর চার্জ গঠন হয়। এরপর তারা কয়েকবার হাইকোর্টে মামলা করে সময় ব্যাহত করেন।’
এ সময় খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন অ্যাটর্নি জেনারেলের বক্তব্যের মাঝে আপত্তি তুলে ধরে বলেন, ‘তিনি রাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল। তিনি এসব কী পড়ছেন?’ এ পর্যায়ে এজলাসে উপস্থিত বিএনপি সমর্থিত আইনজীবীরা উচ্চ স্বরে ইয়েস…ইয়েস বলে জয়নুল আবেদীনকে সমর্থন জানান।
তখন অ্যাটর্নি জেনারেল বিচারপতিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, ‘তারা এমন করলে কিভাবে শুনানি করবো?’
এসময় প্রধান বিচারপতি বললেন, ‘আপনারা এমন করলে কিন্তু শুনানি করতে পারবো না ।’
এরপর আদালতের পরিস্থিতি শান্ত হলে অ্যাটর্নি জেনারেল পুনরায় শুনানি শুরু করেন।
প্রসঙ্গত, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন রাজধানীর বকশীবাজারে স্থাপিত অস্থায়ী পঞ্চম বিশেষ জজ আদালত। রায় ঘোষণার পরপরই তাকে ওই দিন বিকালে নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি এখন সেখানেই আছেন।
ওই রায়ে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত। একইসঙ্গে এ মামলার অপর আসামি তার বড় ছেলে তারেক রহমানসহ বাকি পাঁচ জনকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। পাশাপাশি তাদের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা জরিমানাও করা হয়।
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় অপর মামলাটি করে দুদক। এ মামলায় ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হয়।

Facebook Comments
Please follow and like us: