পুলিশ কর্মকর্তাকে মারধোর দিয়ে থানা থেকে আ’লীগ নেতার মাদক মামলার আসামি ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা

ক্রাইমবার্তা রিপোট:  থানা থেকে মাদক মামলার আসামি ছিনিয়ে নেয়ার সময় বাধার মূখে ময়মনসিংহের গৌরীপুর থানার ভেতরেই পুলিশ কর্মকর্তাকে মারধোর করলেন আ’লীগ নেতা। থানা থেকে মাদক মামলার আসামিকে ছিনিয়ে নেয়ার সময় পুলিশ কর্মকর্তা বাধা দিলে তিনি তার উপর চড়াও হন। আওয়ামী লীগের এই নেতার নাম রোকনুজ্জামান পল্লব (৪২)। তিনি উপজেলা দুই নম্বর গৌরীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।
মারধোরের শিকার পুলিশ কর্মকর্তার নাম হাসানুজ্জামান। তিনি পুরিশের এএসআই।
শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে গৌরীপুর থানার ডিউটি অফিসারের কক্ষে এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ তাকে আটক করে তাৎক্ষণিক আদালতে প্রেরণ করে। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও গাভীশিমুল গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মৃত খালেকুজ্জামানের ছেলে।

থানা সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার রাতে গৌরীপুর হাসপাতালের সামনে থেকে মাদকাসক্ত অবস্থায় মনোয়ারুল হক শিফাত (১৯), হাবিবুর রহমান (২০) ও আবু হানিফ (১৯) কে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন এএসআই হাসানুজ্জামান। সকালে ওই তিনজনের নামে মাদক নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা রেকর্ডভুক্ত হয়।

এ খবর পেয়ে গৌরীপুর সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রোকনুজ্জামান পল্লব দলবল নিয়ে থানায় প্রবেশ করে গ্রেফতারের কারণ জানতে চাইলে ডিউটি অফিসারের কক্ষে প্রবেশ করে তিনি উচ্য-বাচ্য শুরু করেন। এএসআই হাসানুজ্জামান জানান, তখন তিনি ডিউটি অফিসারে কক্ষে বসে দায়িত্ব পালন করছিলেন। এ সময় ওই নেতা তাঁর সামনে গিয়ে জানতে চান কেন ওই তিনজনকে ধরে আনা হয়েছে আর কেনই বা মামলা রেকর্ডভুক্ত হয়েছে। বলার সাথে সাথেই তাকে পোশাকে ধরে টেনেহিঁচড়ে কিলঘুষি শুরু করেন এবং পোশাকটি ছিড়ে ফেলেন। পরে চিৎকার শুনে অফিসার ইনচার্জ দোলোয়ার আহম্মদ ও ইন্সপেক্টর (ওসি তদন্ত) তরিকুজ্জামান দৌড়ে এসে আওয়ামী লীগ নেতা রোকনুজ্জামানকে আটক করেন।

এ ব্যাপারে গৌরীপুর থানার ওসি দেলোয়ার আহম্মদ জানান, পুলিশ যে তিনজনকে আটক করেছে তাঁদের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপকর্মের বিস্তর অভিযোগে আটক করে থানায় আনা হয়। এ সময় ওই তিনজন মাদকাষক্ত ছিল। তাদের থানা থেকে জোরপূর্বক ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে রোকনুজ্জাসান পল্লব। এ সময় ডিউটি অফিসার বাধা দিলে তাঁকে মারধর করে পোশাক ছিড়ে ফেলে।
পল্লবের বিরুদ্ধে থানায় কোনো অভিযোগ আছে কিনা জানতে চাইলে ওসি বলেন,তদন্তের স্বার্থে এখনি কিছু বলা যাবে না। তবে ওই ঘটনায় এএসআই হাসানুজ্জামান বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

Facebook Comments
Please follow and like us: