জামায়াত কাজ করে দলীয় সিদ্ধান্তে,আ’লীগের সিদ্ধান্তে নয়:সিলেটে মেয়র পদে নির্বাটচন : জামায়াতের বক্তব্য

ক্রাইমবার্তা রিপোট:  কয়েকটি সংবাদপত্র ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে আসন্ন সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে প্রার্থী দেয়া সম্পর্কে যে সব তথ্য পরিবেশন করা হয়েছে তার প্রতিবাদ জানিয়েছে দলটি। জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় প্রচার বিভাগের সেক্রেটারি অধ্যাপক মো: তাসনীম আলম গতকাল এক বিবৃতিতে বলেন, গত ৫ ও ৬ জুলাই কয়েকটি সংবাদপত্র এবং অনলাইন নিউজ পোর্টালে আসন্ন সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে প্রার্থী দেয়া সম্পর্কে যে সব অসত্য তথ্য পরিবেশন করা হয়েছে আমি তার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির হীন উদ্দেশ্যেই তারা অসত্য তথ্য পরিবেশন করেছে।

পত্রিকার প্রতিবেদনে ‘সিলেটে প্রার্থী দিয়ে অনমনীয় অবস্থান নেয়ার পেছনে দলের সেক্রেটারি জেনারেল ডা: শফিকুর রহমানের আগ্রহ বেশি কাজ করছে। এর নেপথ্যে আওয়ামী লীগের স্থানীয় এক নেতার সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক কাজ করছে’ মর্মে যে সব কথা লেখা হয়েছে তা একেবারেই অসত্য। এটি জামায়াত নেতৃবৃন্দের চরিত্র হননের শামিল। সিলেটে জামায়াত প্রার্থী দিয়েছে দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী। আওয়ামী লীগের কোনো নেতার সাথে জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেলের সম্পর্ক থাকা বা তার আগ্রহে জামায়াতের প্রার্থী দেয়ার প্রশ্নই আসে না। জামায়াত কাজ করে দলীয় সিদ্ধান্তে, কারো একক সিদ্ধান্তে নয়। কোনো কোনো পত্রিকার রিপোর্টে ‘জামায়াত সিলেটে প্রার্থী দিয়ে ২০ দলীয় জোটের সিদ্ধান্ত লঙ্ঘন করেছে’ মর্মে যে কথা লেখা হয়েছে, তা সর্বৈব মিথ্যা। সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থীর ব্যাপারে এখনো চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। কাজেই সিলেটে প্রার্থী দিয়ে জামায়াতের ২০ দলীয় জোটের সিদ্ধান্ত লঙ্ঘনের প্রশ্ন অবান্তর।

তিনি আরো বলেন, আরেকটি প্রতিবেদনে ‘উদারপন্থী দলগুলোকে নিয়ে ঐক্য প্রক্রিয়ায় জামায়াত খুশি নয়’ মর্মে যে সব কথা লেখা হয়েছে তার কোনো ভিত্তি নেই। আমরাও চাই দেশের জনগণের ভোটাধিকার, আইনের শাসন ও সুষ্ঠু নির্বাচনব্যবস্থা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে সব বিরোধী দল নিয়ে একটি বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে উঠুক। এ নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টির কোনো অবকাশ নেই। রিপোর্টে ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচন এবং তার পূর্বের নির্বাচনে জামায়াতের প্রাপ্ত ভোট নিয়ে যে সব কথা লেখা হয়েছে তা সত্য নয়। ২০০৮ সালের নির্বাচনও অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়নি। ২০০৮ সালের পরে দেশে কোনো জাতীয় সংসদ নির্বাচনই হয়নি। কাজেই দেশে কোন দলের কত ভোট আছে তা এখন কারো পক্ষে নির্ণয় করা সম্ভব নয়।

জামায়াতের এ নেতা বলেন, সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে ২০ দলীয় জোটে ভাঙন সৃষ্টি হোক তা কারো কাম্য নয়। আমরা জাতীয় ঐক্যের স্বার্থে সব সিটি করপোরেশন নির্বাচনেই বিএনপির প্রার্থীকে সমর্থন দিয়েছি। আমরা আশা করছি শুধু সিলেটে জামায়াতের মনোনীত প্রার্থীকে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হবে। আমাদের এ আশা সম্পূর্ণ যৌক্তিক ও ন্যায় সঙ্গত। এজন্য আমাদের প্রত্যাশা ২০ দলীয় জোটের শরিক দলগুলো আমাদের দলের প্রার্থীকেই ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী ঘোষণা করে বিরাজমান সমস্যার যৌক্তিক ও ন্যায় সঙ্গত সমাধান করবেন। বিজ্ঞপ্তি।

আরো পড়ুন :

মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট জুবায়েরের মতবিনিময়

আসন্ন সিসিক নির্বাচনকে সামনে রেখে সিলেট মহানগরীর বিমানবন্দর থানার ৬ নং ওয়ার্ড জামায়াতের উদ্যোগে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার নগরীর খাসদবির এলাকায় মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট সিটি নির্বাচনে নাগরিক ফোরাম মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী, সিলেট জেলা বারের বিশিষ্ট আইনজীবী, জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও মহানগরী আমির অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের।

৬ নং ওয়ার্ড জামায়াতের সভাপতি মারুফ আহমদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও জামায়াত নেতা আবদুল আহাদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিমানবন্দর থানা আমির কারী আলাউদ্দিন ও সেক্রেটারি শফিকুল আলম শফিক। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেনÑ ওয়ার্ড সেক্রেটারি আব্দুর রহমান সুমন, জামায়াত নেতা সুহেল আহমদ, আব্দুল গফফার, জুয়েল আহমদ ও ছাত্রশিবির নেতা আব্দুর রহিম প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের বলেন, নগরীর সব এলাকার প্রতিটি সমস্যা চিহ্নিত করে তা দ্রুত সমাধানের মানসিকতা নিয়েই আমাদের পথ চলা। বিজ্ঞপ্তি।

Please follow and like us:
Facebook Comments