জামায়াতে ইসলামীর আমীর মকবুল আহমাদের মুক্তি লাভ:জননেতা মকবুল আহমাদ প্রসঙ্গ

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর মকবুল আহমাদ জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ থেকে মুক্তিলাভ করেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
ওই কারাগারের জেলসুপার প্রশান্ত কুমার বনিক জানান, জামায়াত নেতা মকবুল আহমাদের জামিনের আদেশ সোমবার সন্ধ্যায় কারাগারে পৌছায়। যাচাই বাচাই শেষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাকে মুক্তি দেয়া হয়।

 বৈঠক করার সময় ২০১৭ সালের ৯ অক্টোবর রাজধানীর উত্তরার একটি বাসা থেকে জামায়াতে ইসলামীর আমির মকবুল আহমাদ ও নায়েবে আমির মিয়া গোলাম পরওয়ার এবং সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ ৯ জামায়াত নেতাকে গ্রেফতার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। ২৬ নভেম্বর থেকে তাকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার পার্ট ২ এ আনা হয়। তারপর থেকেই তিনি কারাগারেই ছিলেন।
উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ১৭ অক্টোবর একাত্তরে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত দল জামায়াতে ইসলামীর তৃতীয় আমির হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন মকবুল আহমাদ। জামায়াতে ইসলামীর রোকনরা গোপন ভোটের মাধ্যমে ২০১৭-২০১৮-২০১৯ কার্যকালের জন্য মকবুল আহমাদকে আমির হিসেবে নির্বাচিত করেন। এর আগে জামায়াতের সাবেক আমির মতিউর রহমান নিজামীকে গ্রেফতারের পর প্রায় ৬ বছরেরও বেশি সময় ধরে তিনি দলটির ভারপ্রাপ্ত আমিরের দায়িত্ব পালন করছিলেন। তখন তিনি আত্মগোপনে থেকেই দল পরিচালনা করতেন।
 জামায়াতের আমীর মকবুল আহমাদ, সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানসহ নয়জন নেতাকে গত বছরের ৯ অক্টোবর রাজধানীর উত্তরা ৬ নম্বর সেক্টর এলাকার একটি বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরদিনই তাদের আদালতে হাজির করে কদমতলী থানার দুই মামলায় পাঁচদিন করে ১০ দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

৩০ অক্টোবর মতিঝিল থানার ১টি মামলায় আরো তিন দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। সে সময় শুনানী আইনজীবীরা জানিয়েছিলেন, আইন অনুযায়ী ১২০ দিনের মধ্যে মামলার তদন্ত শেষ হওয়ার কথা। কিন্তু পুলিশ দীর্ঘ তিন বছরেও তদন্ত রিপোর্ট দেয়নি। এ সময়ের মধ্যে মামলার কোন অগ্রগতিও নেই। তিনি বলেন, ইতিপূর্বে অনেককে এ মামলায় রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। তাদের কেউ মকবুল আহমাদের নাম বলেনি। শুধুমাত্র হয়রানি করার জন্যই তাকে রিমান্ডে নেয়া হয়। তিনি আরো বলেন, মকবুল আহমাদের বয়স ৮০ বছর। তিনি নানা জটিল রোগে আক্রান্ত। তিনি রিমান্ড বাতিল করে জামিনের আবেদন করেন।

 

————–০———————-

জননেতা মকবুল আহমাদ প্রসঙ্গ
মতিউর রহমান আকন্দ :

সামাজিক কার্যক্রম : জনাব মকবুল আহমাদ বেশির ভাগ সময়ই সাংগঠনিক কাজে জড়িত ছিলেন। তিনি সংগঠনের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন। তার প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত বিভিন্ন শিক্ষা ও সামাজিক প্রতিষ্ঠান থেকে জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে জনগণের সেবায় নিয়োজিত রয়েছে। প্রতি বছর শতাধিক গরীব প্রতিভাবান ছাত্রদেরকে এসব প্রতিষ্ঠান থেকে এককালীন বৃত্তি প্রদান করা হয়।

বিদেশ ভ্রমণ ও হজ্ব পালনের অনুভূতি : জনাব মকবুল আহমাদ রাবেতার আমন্ত্রণে আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগদানের উদ্দেশ্যে সৌদি আরবের রিয়াদ সফর করেন। রাবেতা আয়োজিত এ সম্মেলনে তিনি বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর প্রতিনিধিত্ব করেন। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত বিভিন্ন ইসলামী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, লেখক, গবেষক, শিক্ষাবিদ, চিন্তাবিদ ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনের সমাদৃত ব্যক্তিবর্গও এ সকল সম্মেলনে যোগদান করেন।

প্রবাসী সংগঠনের আমন্ত্রণে সাংগঠনিক সফরে তিনি জাপান ও মালয়েশিয়া সফর করেন। জাপান সফর শেষে তিনি সফরের অভিজ্ঞতার আলোকে রচনা করেন -‘জাপান সফর-দেখার অনেক শিখার অনেক’। তার রচিত এ গ্রন্থটি সুখপাঠ্য বই হিসেবে সমাদৃত। তিনি সৌদি আরব সরকারের রাবেতা আলমে আল ইসলামীর মেহমান হিসাবে প্রথম হজ্ব পালন করেন। এরপর ২০০৩ সালে আবারহজ্ব¡ পালন করেন। জনাব মকবুল আহমাদ হজ্বের অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, ‘খানায়ে কাবা দর্শন সে এক অকল্পনীয় অব্যক্ত অনুভূতি। সারা দুনিয়ার মানুষ, খোদাপ্রেমে সবকিছু ছেড়ে দুনিয়া ত্যাগী ফকিরের বেশে এক কাপড় পড়ে কাবা প্রদক্ষিণ আমার মনে বিরাট প্রভাব পড়েছে। সারা দুনিয়ার মুসলমানদের ঐক্যের জন্য মহান রাব্বুল আলামীন যে ব্যবস্থা করেছেন তার দ্বারা মুসলিম বিশ্বের ঐক্যের বিরাট বন্ধন উপলব্ধি করেছি।

হজ্বের শিক্ষা উপলব্ধি করা ও কাজে লাগানোর প্রচেষ্টা হিসাবেই ইসলামী আন্দোলন (ইকামাতে দ্বীনের) প্রেরণা অনেক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। সারা জীবন অন্য কোন কাজকে আর প্রাধান্য দেইনি বা দিতে পারিনি।’
ভারপ্রাপ্ত আমীর হিসেবে দায়িত্ব পালন : ২০১০ সালের ২৯ জুন জামায়াতে ইসলামীর আমীর শহীদ মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী, শহীদ আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদ, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী গ্রেফতার হলে জনাব মকবুল আহমাদ ভারপ্রাপ্ত আমীর হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। সুদীর্ঘ সাড়ে ছয় বছর তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় জামায়াতের উপর অবর্ণনীয় অত্যাচার অবিচার, বহু কর্মীকে গুম, খুন ও পঙ্গু করার অমানবিক সরকারি প্রচেষ্টা চলে। এ সময় তিনি ধৈর্যহারা হননি। আইনী সীমার মধ্যে চলার এবং সংগঠনকে খোদাভীতি ও নিয়ম শৃঙ্খলার মধ্যে রাখার সাধ্যমত চেষ্টা করেন।
জামায়াতের সংগঠনের শৃঙ্খলার কারণে হাজার হাজার (রুকন) সদস্য কর্মী ছবরের সাথে কাজ করায় সারা দেশের মানুষের মধ্যে একটি ইতিবাচক ধারণার সৃষ্টি হয়েছে। হাজার হাজার কর্মী কারাবরণ করে কারাভ্যন্তরে ইসলামের শিক্ষা অনুযায়ী নিজদেরকে গঠন করতে সক্ষম হয়। জেল থেকে মুক্তি লাভ করে তারা আরো ভালো মজবুত কর্মী ও সমাজ সচেতন হয়েছে।
সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও কর্মীবৃন্দ ত্যাগ কুরবানী ও আনুগত্যের মধ্যে যেভাবে কাজ করেছেন তাতে আমীরে জামায়াত হিসেবে তিনি আরো উদ্বুদ্ধ হন।

ভারপ্রাপ্ত আমীর হিসেবে সারা দেশের বড় বড় সমাবেশগুলোতে তিনি বক্তব্য রেখেছেন। তার বক্তব্যে কারও বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক ও উস্কানিমূলক বক্তব্য না দিয়ে তিনি দেশের সমস্যা উপলব্ধি করে সবাইকে নিয়ে সমস্যা সমাধানের জন্য আহ্বান জানান। তিনি গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও সকল দলের অংশগ্রহণে নিরপেক্ষ এবং গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য আন্দোলনে সোচ্চার হওয়ার লক্ষ্যে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান। তিনি রাজনীতির একটা স্বচ্ছ সাবলীল ধারা চালুর চেষ্টা করেন।
আমীরে জামায়াতসহ শীর্ষ ৫ নেতার ফাঁসি সম্পর্কে : জনাব মকবুল আহমাদ সরকারের জুলুম-নিপীড়নের মাঝেও সংগঠনকে যথার্থভাবে পরিচালনায় কার্যকর ভূমিকা পালন করেন। জামায়াত নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে দায়ের করা ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় তিনি রাজনৈতিক লড়াইয়ে নেতৃত্ব দেন। আইনগতভাবে মোকাবিলার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেন। বিতর্কিত বিচারে ফাঁসি দেয়ার পর তিনি শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি দিয়ে সরকারের রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ জানান। জনাব মকবুল আহমাদের নেতৃত্বে দেশে বিদেশে সরকারের জুলুম-নির্যাতন ও সাজানো বিচারের বিরুদ্ধে ব্যাপক জনমত গড়ে উঠে। জাতিসংঘ, Human Rights Watch সবাই বিচারের জন্য ব্যবহৃত আইনকে একটি কালো আইন হিসেবে আখ্যায়িত করেন। জামায়াত নেতাদের ফাঁসি না দিতে জাতিসংঘ, বিভিন্ন রাষ্ট্র, মানবাধিকার সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান আহ্বান জানান। সরকার কারো কথায় কর্ণপাত করেনি। ফলে এ সরকারের বিরুদ্ধে সারা দুনিয়ায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। জনাব মকবুল আহমাদ মনে করেন, আদালতে আখেরাতে আমাদের নেতৃবৃন্দ নিশ্চিতভাবে ন্যায় বিচার পাবেন।
তিনি বলেন, মহামতি সক্রেটিস, ইতিহাস বিখ্যাত নেত্রী জোয়ান অবআর্ক কতজনকেই তো Judicial Killing করেছে। আদালত তখনও ছিল। কিন্তু ১০০ বছর পরে তাদেরকে জাতীয় হিরোর মর্যাদা দিয়ে ইতিহাস নতুনভাবে লেখা হয়েছে।

জনাব মকবুল আহমাদ বলেন, যে মানুষগুলো সারা জীবন চুরি, ডাকাতি, মানুষ খুন অথবা অন্য কোন অন্যায় করেনি তারা হঠাৎ ’৭১ এ খুনি হয়ে হাজার হাজার মানুষ হত্যা করল এটা কি করে সম্ভব? আবার জোট সরকারের আমলে ২ জন মন্ত্রী দুর্নীতিমুক্ত ও যোগ্য হিসেবে Far East Economic Review-এর মত পত্রিকায় স্বীকৃতি লাভ করেন।
আমীরে জামায়াত হিসেবে শপথ : জনাব মকবুল আহমাদ স্বাস্থ্যগত কারণে জামায়াতের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি চেয়েছিলেন। কিন্তু জামায়াত নেতৃবৃন্দ তা গ্রহণ করেননি। সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা আমীর নির্বাচনের জন্য ৩ সদস্যের একটি প্যানেল নির্বাচিত করেন। সারা দেশের রুকনগণ সেই প্যানেল থেকে জনাব মকবুল আহমাদকে আমীর নির্বাচিত করেন। এ বছর ১৭ অক্টোবর তিনি আমীর হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। সেদিন তিনি তার দীর্ঘ বক্তব্যে জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানান। এর পরপরই শুরু হয় তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার। জনাব মকবুল আহমাদ বলেন, এ দায়িত্বে যাকেই বসানো হোক তার বিরুদ্ধে এভাবে অভিযোগ আসবে, আসতেই থাকবে। এটা রাজনৈতিক বিদ্বেষ ও সংকীর্ণতার কারণে চলতেই থাকবে

Please follow and like us:
Facebook Comments