সাতক্ষীরায় ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে এক স্কুল শিক্ষিকাকে বর্বর নির্যাতন

স্টাফ রিপোর্টার : সাতক্ষীরায় এক স্কুল শিক্ষিকাকে শ^ীলতাহানী ও বর্বর নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। সাতক্ষীরা সদর থানায় লিখিত এজাহার করেছেন ভূক্তভোগী। সাতক্ষীরা সদর থানার এজাহার সূত্রে ও স্কুল শিক্ষিকা সদরের ঘোনা ইউনিয়নের ছনকা গ্রামের ইলিয়াছ সরদারের মেয়ে মুক্তিসেনা শিশু বিদ্যপীঠের শিক্ষকা রোখসানা পারভীন জানান, তার নামে হিংসার্থকভাবে অসৎ উদ্দেশ্যে চরিতার্থ করতে ছনকা গ্রামের সরদার রহিল উদ্দিন, আবুবক্কর সিদ্দিক ও আব্দুল কাদের মাদক ব্যবসায়ী ও জামাত শিবির বলে পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেরিনা আক্তার তাকে তার কার্যালয়ে হাজির হতে বলে। গত ১০ জুলাই মঙ্গলবার অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের নিকট হাজির দেওয়ার পর সন্ধ্যার আগে ছনকা বাজারে কিছু দরকারি কাগজপত্র ফটো কপি করে বাড়ি ফেরার সময় ছনকা বাজারে কাজল দর্জির দোকানের সামনে ছনকা গ্রামের রহিল উদ্দিনের ছেলে মো. কামাল, ছহিল উদ্দিনের ছেলে আব্দুল আলিম, লোকমান সরদারের ছেলে আনারুল, শহরের ইটাগাছা এলাকার মৃত আব্দুর রহিমের ছেলে আব্দুর রশিদ, ঘোনা গ্রামের মৃত আকবর আলী সরদারের ছেলে সিদ্দিকুর রহমান, আলিপুর গ্রামের মৃত পুটি সরদারের ছেলে রফিকুল ইসলাম রফি, ভাড়–খালী গ্রামের মৃত শ্যাম আলী মন্ডলের ছেলে আব্দুল কাদের আমার গতি রোধ করে বলে তুই মাদক ব্যবসায়ীদের সহায়তা করিস, তুই গ্রামের পরিবেশ নষ্ট করছিস তোর বিচার করা হবে বলে আমাকে মিথ্যা দোষারোপ করে ছনকা বাজারে ভাড়–খালী গ্রামের মৃত শ্যাম আলী মন্ডলের ছেলে আব্দুল কাদের ভাড়াকৃত দোকানের ভিতরে টেনে হিচড়ে নিয়ে যায়। এসময় ছনকা গ্রামের রহিল উদ্দিনের ছেলে মো. কামাল আমাকে ধর্ষণ করার চেষ্টা করে। অন্যান্যরা এসময় আমার স্পর্ষকাতর স্থানে হাত দেয়। তারা যৌনকামনা চরিতার্থ করতে না পেরে বেধরক মারপিট করে ঐ দোকানে তালাবদ্ধ করে রাখে। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আমাকে উদ্ধার করে এবং রাত আড়াইটায় সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মারুফ আহম্মদ জানান, উভয় পক্ষ পাল্টা পাল্টি অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত শেষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নারীর প্রতি সহিংসতারোধে এধরনের ঘটনা কোন মানুষের কাম্য নয়। এব্যাপারে ভুক্তভোগী ও সচেতন মহল দোষী নরপশু লম্পটদের দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্ট্রান্তমূলক শাস্তির জন্য জেলা পুলিশ সুপারের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Facebook Comments
Please follow and like us: