মাতৃত্বকালীন ভাতা কার্ডের জন্য উৎকোচ গ্রহণ: জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা

ক্রাইমর্বাতা রিেপাট:   সাতক্ষীরা :  শ্যামনগর প্রতিনিধি: বামুনী গাইন নামের এক নারীকে মাতৃত্বকালীন ভাতা সুবিধাভোগীর আওতাভুক্ত করার বিনিময়ে নগদ অর্থ গ্রহনের উঠেছে কাশিমাড়ী ইউনিয়নের ইউপি সদস্য সীতা রানী বৈদ্যের বিরুদ্ধে। ইতিমধ্যে প্রতারনার শিকার অভাবী ঐ নারী বিষয়টির প্রতিকারসহ অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়ে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছে। সীতা রানী কাশিমাড়ী ইউনিয়নের ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালনরত এবং বামুনী গাইন একই ওয়ার্ডের অন্তর্ভুক্ত দেওল গ্রামের বিমল গাইনের স্ত্রী।
লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে সম্প্রতি বামুনী গাইন সন্তান সম্ভবা হওয়ার পর মাতৃত্বকালীন সুবিধাভোগীর তালিকাভুক্ত হতে ইউপি সদস্য সীতা রানীর দারস্থ হয়। এসময় সীতা রানী ওই নারীকে নির্বাচনকালীন সময়ে তার হয়ে কাজ করা রতন বৈরাগীর সাথে দেখা করে নাম তালিকাভুক্ত করার পরার্মশ দেন।
বামুনী গাইন ও তার পরিবারের অভিযোগ রতনের সাথে যোগাযোগ করা হলে বিশেষ ওই সুবিধাভোগীর তালিকাভুক্ত হওয়ার জন্য শর্ত হিসেবে পাঁচ হাজার টাকা দাবি করেন রতন। দারিদ্রতার কথা বলে তিন হাজার হাজার টাকায় বিষয়টির দফারফা করলেও পরবর্তীতে কার্ডের মেয়াদ বৃদ্ধির শর্তে রতন ইউপি সদস্য সীতার নামে বামুনীর পরিবারের নিকট থেকে আরও দুই হাজার টাকা আদায় করেন।
সরকারিভাবে এসব সুবিধাভোগীর ভাতার মেয়াদ বাড়ানোর বিষয়টি পরবর্তীতে জানতে পেরে তারা ঐ ঘটনার প্রতিকারসহ অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন।
বামুনী গাইনের দাবি মাতৃত্বকালীন ছাড়াও বিজিএফ এবং অন্যান্য সরকারি সুবিধাভোগীর তালিকাভুক্ত করার বিনিময়ে সীতা রানী তার এজেন্টদের দিয়ে স্থানীয়দের থেকে আর্থিক সুবিধা গ্রহন করেছেন। তার বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করলে তা অন্যদের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। সেজন্য তিনি বিষয়টি নিয়ে তদন্তের জন্য জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আর্কষণের দাবি জানান।
এমন অভিযোগের বিষয়ে ইউপি সদস্য সীতা রানী বলেন, রতন নির্বাচনের সময় আমার পক্ষে কাজ করেছিলেন। তবে সে টাকা নিয়েছে কিনা জানা নেই। তার নামে টাকা আদায়ের অভিযোগের পরও রতনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়ার কারন জানতে চাইলে তিনি বলেন তার স্বামী সাংবাদিকদের সাথে কথা বলে বিষয়টি নিরসন করেছেন।

Facebook Comments
Please follow and like us: