জুন ৬, ২০১৯
ফরিদপুরে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় কলারোয়া লাঙ্গলঝাড়া গ্রামের সৈকত নিহত!

ক্রাইমবার্তা রিপোটঃ ডেস্ক জোয়ার্দ্দার : সাতক্ষীরার কলারোয়ায় পরিবারের সাথে ঈদের আনন্দ ও পবিত্র ঈদ- উল- ফিতরের নামাজ আদায় করা হলো না ঢাকা কলেজের অনার্স প্রথম বর্ষের মেধাবী ছাত্র শাহরিয়ার সৈকতের (২০)।

সে কলারোয়া উপজেলার লাঙ্গলঝাড়া গ্রামের আজিজুল হকের ছেলে। (বুধবার ৫ ই জুন) ঈদের দিন সকাল ৭ টার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা সিকড়ের টানে সাতক্ষীরা গামী

একে ট্রাভেল পরিবহন যোগে বাড়ি ফেরার পথে ফরিদপুর সদর উপজেলার ধুলদী রেলগেট এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় ছয় যাত্রী নিহত হয়। নিহত ছয় যাত্রীর মধ্যে সৈকতও নিহত হয়।

নিহত সৈকতের সাথে থাকা একই গ্রামের আরেক বন্ধু শাওন গুরুত্বর আহত হয়। তাকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হলে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। এসময় ওই পরিবহনে থাকা আরো ৩০ জনের মতো যাত্রী আহত হয় বলে জানা যায়।

নিহত সৈকতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, পবিত্র ঈদ- উল- ফিতরের নামাজ ও ঈদ উৎযাপনের জন্য ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরছিলেন নিহত সৈকত ও তার বন্ধু আহত শাওন।

সহপাঠিরাসহ পরিবারের লোকজন অধীর অপেক্ষায় দু’জনের পথ চেয়ে বসে আছে কখন আসবে তারা। কিন্তু আর কোনদিন ফিরবে না সৈকত।

ফরিদপুরে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় বাড়ি ফিরে আসেন সৈকতের লাশ। আহত অবস্থায় আছেন তাদের আরেক বন্ধু শাওন। সেই একই গ্রামের লুৎফর রহমানের ছেলে শাহরিয়ার সৈকতের অকাল মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না লাঙ্গলঝাড়াবাসী।

মেধাবী ছাত্র সৈকতের মৃত্যুর খবর মুহূর্তের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। মৃত্যুর খবর শুনে দূর্ঘটনাস্থলে ছুটে যান লাঙ্গলঝাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মাস্টার নূরুল ইসলামসহ নিহত- আহতের পরিবারের লোকজন।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত লাশ শনাক্ত করে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসার প্রস্তুুতি চলছে বলে জনান ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম।

Facebook Comments
Please follow and like us:
একই রকম সংবাদ


Thia is area 1

this is area2