জুন ২৮, ২০১৭
রাজনীতির ঈদ, ঈদের রাজনীতি

ক্রাইমবার্তা ডেস্করিপোর্ট

রংপুরে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন স্থানীয় সরকারে ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমানরংপুরে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন স্থানীয় সরকারে ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান

আগামী সংসদ নির্বাচনকে টার্গেট করে নির্বাচন কমিশন (ইসি) রোডম্যাপ ঘোষণা করায় রাজনৈতিক অঙ্গনে বাজতে শুরু করেছে ভোটের হাওয়া। দুই রাজনৈতিক শিবিরে প্রকাশ্য ও গোপনে চলছে নির্বাচনি প্রস্তুতি। বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় চলছে প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ। রাজনৈতিক দলের এই প্রস্তুতির মধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরাও নিজেদেরকে প্রস্তুত করে তুলছেন। দলের মনোনয়ন পেতে দেখাচ্ছেন নানা কর্মতৎপরতা। ভোটারদের কাছে নিজেকে তুলে ধরতে এবারের ঈদকে বেছে নিয়েছেন মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতারা। এই তালিকায় বর্তমান সংসদ সদস্যরা তো রয়েছেনই পাশাপাশি এলাকাবাসীর কাছে নিজেকে মেলে ধরতে ছুটছেন মনোনয়ন প্রত্যাশী তরুণ নেতারাও। পুরো রমজান মাস ও ঈদকে কাজে লাগিয়ে নিজেদের প্রার্থিতার বিষয়ে জানান দেওয়ার পাশাপাশি তারা ভোটারদের আস্থা অর্জনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। দেশের বিভিন্ন জেলায় রমজান মাস ও ঈদের দিনে রাজনৈতিক নেতাদের গণসংযোগমূলক কর্মকাণ্ডে ফুটে উঠেছে এই চিত্র।

সংবিধানের বিধান অনুসারে আগামী ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে অনুষ্ঠিত হবে একাদশ সংসদ নির্বাচন। সেই হিসেবে আরও দেড় বছর হাতে রয়েছে নির্বাচনের জন্য। তবে, বর্তমান দশম সংসদ নির্বাচন অনেকটা ‘একতরফা’ হওয়ায় ইসি ও রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য নির্বাচনের মাঠ গোছানো এ মুহূর্তে খুব সহজ নয়। ভোটারদের আস্থা অর্জন এবং স্থানীয় পর্যায়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতাকে বেছে নেওয়া তাই অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে দলগুলো। এজন্য সকল পক্ষই আগেভাগে নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে। ইসি আগামী জুলাই মাস থেকে পথ চলতে শুরু করবে তার রোডম্যাপ ধরে। এর ধারাবাহিকতায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দুই শিবিরই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তাদের যাবতীয় প্রস্তুতি চালিয়েছে যাচ্ছে। দীর্ঘ ১১ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি দল গোছানোর পাশাপাশি প্রার্থী বাছাইয়ে নজর দিয়েছে সবার আগে। ইতোমধ্যে দলটি দেশের ৩০০ আসনের জন্য সম্ভাব্য ৯০০ প্রার্থী বাছাই করেছে বলে দলটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগও প্রতি আসনে ৩জন করে প্রার্থী বাছাই করছে বলে জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফলে বড় এই দল দুটির মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতাদের মাঠে গণসংযোগ বেড়ে গেছে আগের তুলনায় অনেক বেশি।

দুই দলের প্রার্থী বাছাইয়ের তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করতে এলাকার জনগণের কাছাকাছি থাকার চেষ্টা করছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। এর অংশ হিসেবে তারা সদ্য বিদায়ী রমজান মাসে ইফতার সামগ্রী বিতরণ ইফতার অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণসহ নিয়মিতভাবে নির্বাচনি এলাকায় নিজেদের উপস্থিতি জানান দিয়েছেন। এর ধারাবাহিকতায় তারা ঈদের দিনও নির্বাচনি এলাকার গিয়ে ঈদের জামাত আদায়সহ জনগণের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন। এ সময় তিনি প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করছেন জনগণের কাছে। মনোনয়ন দৌড়ে জয়ী হতে চাচ্ছেন তাদের সহযোগিতা। আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:

রংপুর প্রতিনিধি লিয়াকত আলী বাদল জানিয়েছেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রংপুরের ৬টি নির্বাচনি এলাকায় আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির সম্ভাব্য প্রার্থীরা ঈদের জামাত থেকে শুরু করে দিনভর গণসংযোগ করে দোয়া প্রার্থনা করেছেন। রংপুর-৬ আসন পীরগঞ্জ ঈদগাহ মাঠে নামাজ শেষে প্রকাশ্যে ধানের শীষে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী সাইফুল ইসলাম।

রংপুর-১ আসনের জাপা দলীয় এমপি স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী ও জেলা জাপার আহ্বায়ক মশিয়ার রহমান রাঙ্গা ঈদের নামাজ পড়েছেন তার নির্বাচনি এলাকা রংপুর-১ আসনের গঙ্গাচড়া উপজেলার হাবু ঈদগাহ মাঠে। এসময় তিনি সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা করে সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানান। পরে তাকে এলাকাবাসীর সঙ্গে কুশল বিনিময় ও গণসংযোগও করতে দেখা গেছে।

রংপুর-২ আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় এমপি আহসানুল হক চৌধুরী ডিউক ঈদের নামাজ আদায় করেন তার গ্রামের বাড়ি বদরগঞ্জ উপজেলার বকসীগঞ্জ ঈদগাহ মাঠে। নামাজ শেষে তিনিও মুসল্লীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। পরে এলাকায় গণসংযোগের সময় সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের বর্ণনা দিয়ে আবারও তাদের নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান। এ আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরকার ঈদের নামাজে অংশ নিলেও তিনি বা দলের নেতা কর্মীদের কোনও প্রচারণা চালাতে দেখা যায়নি।

ঈদে রংপুরেই যাননি সদর আসনের এমপি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। এরশাদের পক্ষে জনসাধারণকে ঈদ শুভেচ্ছা জানান দলীয় নেতা-কর্মীরা। এই আসনে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য কোনও নেতাকে ঈদ উপলক্ষে গণ সংযোগ করতে দেখা যায়নি। বিএনপির কোন নেতাকেও ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতে দেখা যায়নি।

এছাড়াও এলাকায় ঈদ করতে দেখা যায়নি রংপুর-৪ আসনের বর্তমান এমপি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সভাপতি টিপু মুন্সিকে। আসেননি রংপুর-৬ আসনের বর্তমান এমপি জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরীও। রংপুর-৪ আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী আমিনুল  ইসলাম রাঙ্গা ও জাপা প্রার্থী সেলিম বেঙ্গলও ঈদ জামাতে অংশ নিয়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন।

রংপুর-৫ আসনের এমপি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কোষাধাক্ষ্য এইচ এন আশিকুর রহমান ঈদের ২ দিন আগে তার নির্বাচনি এলাকা মিঠাপুকুরে আসেন।  তিনি মিঠাপুকুর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে ঈদের নামাজ আদায় শেষে মুসল্লিদের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ আসনে জাপা কিংবা বিএনপির সম্ভাব্য কোন প্রার্থীকে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতে দেখা যায়নি।

আর পীরগঞ্জে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম পীরগঞ্জ উপজেলার কাদিরাবাদ ঈদগাহ মাঠে নামাজ শেষে মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে বক্তৃতায় আগামী নির্বাচনে ধানের শীষে ভোট দেওয়ার আহবান জানান। পরে বিএনপির ভিশন-২০৩০ সংক্রান্ত লিফলেটও বিতরণ করেন তিনি।

সিলেট প্রতিনিধি তুহিনুল হক তুহিন জানান, সিলেট-১ আসনে বিএনপির টিকিট পাওয়ার লড়াইয়ে শামিল হয়েছেন দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। রমজান মাসজুড়ে বিভিন্ন ইফতার পার্টি আয়োজনের মাধ্যমে নিজের ইচ্ছার কথা এরইমধ্যে জানান দিয়েছেন মুক্তাদির। সিলেটের কেন্দ্রীয় শাহী ঈদগাহ’য় ঈদের নামাজ আদায় করে সাধারণ মানুষসহ নেতাকর্মীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য হচ্ছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। আসন্ন নির্বাচনে তিনি আর প্রার্থী নাও হতে পারেন ধরে নিয়ে এ আসনে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন তার ছোট ভাই ড. আব্দুল মোমেন। ঈদের মাঠে তিনিও নামাজ আদায় শেষে গণসংযোগ করেন।

কুমিল্লা প্রতিনিধি জানান, আগামী সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লার ১১টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য এরই মধ্যে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশী নিজেদের ইচ্ছার কথা জানান দিতে শুরু করেছেন। নির্বাচনকে মাথায় রেখেই তারা উপস্থিত হতে শুরু করেছেন স্থানীয় বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে।

বিশেষ করে এবারের ঈদের জামাতে অংশ নেওয়াসহ কোলাকুলি, কুশল বিনিময়, গরিবদের মাঝে খাবার বিতরণ, ঈদের আগে বস্ত্র বিতরণ জাতীয় কর্মসূচিতে পাওয়া গেছে আসন্ন নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী বড় দুটি দলের নেতাদের।

তবে জেলার ১১টি আসনের মধ্যে কুমিল্লা-৩ (মুরাদনগর) আসনে বিএনপির প্রার্থী কে হবেন তা নিয়েই চলছে জল্পনা-কল্পনা।এ আসনে ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য ও সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ কাজী শাহ্ মোফাজ্জল হোসাইন কায়কোবাদ আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম সরকারকে হারিয়ে জয়লাভ করেছিলেন। গ্রেনেড হামলা মামলায় নাম জড়ানোয় অসুস্থতাজনিত কারণ দেখিয়ে কায়কোবাদ বর্তমানে বিদেশে অবস্থান করছেন। দেশে অনুপস্থিত থাকলেও এবারও কায়কোবাদের পক্ষে টিকিট আনার চেষ্টায় রয়েছেন তার সমর্থক নেতা-কর্মীরা। তারা বলছেন প্রার্থী কায়কোবাদই হবেন, না হলে তার পরিবার থেকে কেউ মনোনয়ন পাবেন। অন্যদিকে, বিএনপির টিকিট পেতে এলাকাবাসীর সমর্থন পাওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন কেন্দ্রীয় যুবদলের সাবেক শিল্প বিষয়ক সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া সরকার। এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হলেন বর্তমান সংসদ সদস্য ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন ও উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকার। জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে দলটির উপজেলা সভাপতি আক্তার হোসেনের নাম শোনা যাচ্ছে।বাকি ১০টি আসনে বর্তমান সংসদ সদস্যরা ছাড়াও মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকাটাও বেশ দীর্ঘ।

ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় ও গণসংযোগ করেন অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেনঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় ও গণসংযোগ করেন অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন

পটুয়াখালী প্রতিনিধি রাজীব বোস জানান, রমজান ও ঈদ উৎসব পালনের মাধ্যমে প্রধান দুটি দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীদের তৎপরতা এখন পটুয়াখালী জেলাজুড়ে। এখানে নিজের আসন ধরে রাখতে বর্তমান সংসদ সদস্য ও ধর্মমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. শাজাহান মিয়া ও তার ছেলে শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট তারিকুজ্জামান মনি গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। ঈদে ধর্মমন্ত্রী না এলেও নেতাকর্মীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন তার ছেলে। তবে রোজার মাসে এসে বিভিন্ন ইফতার পার্টি ও দোয়া মোনাজাতে অংশ নেন মন্ত্রী। সেসময় তার পক্ষে নির্বাচনি প্রচারণা চালিয়ে যেতে নেতা-কর্মীদের মাঠে থাকার নির্দেশনা দেন।

এদিকে,  কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন নেতাকর্মীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় ও গণসংযোগ করেছেন। তিনি ঈদের দিন শহরে এবং দুমকি উপজেলায় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সাধারণ জনগণের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এর পাশাপাশি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা মোহাম্মদ আলী আশ্রাফ এলাকায় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন। ঈদ উপলক্ষে শহরের সড়কে বেশ কয়েকটি তোরণ নির্মাণের পাশাপাশি ব্যানার ও ফেস্টুন দিয়ে সাজিয়েছেন সাবেক এই ছাত্রনেতা।

অন্যদিকে, পটুয়াখালী-১ আসনের সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার ঈদ উপলক্ষে তার নির্বাচনি এলাকায় আসেননি। এমনকি রোজার মধ্যেও তিনি নেতাকর্মী বা সাধারণ মানুষের মাঝে কোন ইফতার পার্টি বা দোয়া মোনাজাতে অংশ নেননি। আর বিএনপির স্থানীয় নেতা ছাড়া পটুয়াখালীতে কেন্দ্রীয় কোনও নেতা বা মনোনয়ন প্রত্যাশী কেউ ঈদ পালন করতে এলাকায় আসেননি। নেতাকর্মীর সৌজন্যে দলীয় ইফতার পার্টির আয়োজনও করা হয়নি।

পটুয়াখালী-২ (বাউফল) আসনের সংসদ সদস্য ও সংসদের চিফ হুইফ আসম ফিরোজ ঈদের আগের দিন ৪২ জন হতদরিদ্রদের মাঝে ৫ হাজার টাকা করে আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করেন। এছাড়া উপজেলার ১০ টি মসজিদ ও ৩ টি মন্দিরের উন্নয়নের জন্য ২ লাখ ৪০ হাজার টাকার চেক বিতরণ করেন। নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় ও গণসংযোগ করেছেন। ঈদের দিন নেতাকর্মীর সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করে এলাকায় ঈদুল ফিতর পালন করেন অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বাউফল পৌর মেয়র জিয়াউল হক জুয়েল। এছাড়া বিএনপি দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য শহিদুল আলম তালুকদার নেতা-কর্মীর ও সাধারণ মানুষের জন্য ইফতার পার্টির আয়োজন করেন।

পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) আওয়ামী লীগ নেতা আখম জাহাঙ্গীর হোসাইন এমপি ও জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা কাজী আলমগীর হোসেন ঈদ উপলক্ষে দরিদ্রদের মাঝে ঈদের উপহার সামগ্রী বিতরণ ও নেতা-কর্মীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এদিকে ২০ দলীয় জোট থেকে কেন্দ্রীয় কৃষক দল ও জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও গলাচিপা উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো.গোলাম মোস্তফা, সাবেক এমপি উপজেলা বিএনপির সদস্য শাহজাহান খান, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও ঢাকসু’র সাবেক ছাত্রনেতা মো. হাসান মামুন ঈদ পূর্ব সময়ে নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষের জন্য ইফতার পার্টির আয়োজন করেন। আর ঈদুল ফিতরের দিন নেতা কর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন সাবেক এমপি শাহজাহান খান।

পটুয়াখালী-৪ আসনে নেতা-কর্মী ও এলাবাসীর সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মাহাবুবুর রহমান এমপি। এ আসনে আওয়ামী লীগের অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী কুয়াকাটা পৌরসভার মেয়র ও মহিপুর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বারেক মোল্লা পাঁচ শতাধিক দরিদ্র ও অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ বস্ত্র বিতরণ করেছেন । ঈদের দিন তিনি সবার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

জয়পুরহাট প্রতিনিধি আলমগীর চৌধুরী জানান, ঈদ উদযাপনের সুযোগে দলীয় নেতাকর্মী ও এলাকাবাসীর সঙ্গে গণসংযোগ চালিয়েছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতারা। জেলার সব কটি সংসদীয় আসনে এ চিত্র দেখা গেছে। সদর আসনে সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সামছুল আলম দুদু এবারও দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার আশায় রমজান মাসে নিজ ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন স্থানে ইফতার মাহফিলের আয়োজনের মাধ্যমে নিজের ইচ্ছার কথা জনগণকে জানানও দিয়েছেন । জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার কেন্দ্রীয় মসজিদে ঈদের নামাজ আদায়ের পর সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে কোলাকুলি শেষে প্রার্থিতার ঘোষণা দিয়ে তার জন্য দোয়া কামনা করেন দুদু। একইভাবে জয়পুরহাট-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন লাভের জন্য গণসংযোগ করছেন পাঁচবিবি পৌর মেয়র ও পাঁচবিবি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান। ঈদের দিন সোমবার এবং আজ মঙ্গলবার তিনি এলাকার সনাতন ধর্মাবলম্বীদের জন্য গণখাবারের ব্যবস্থা করেন।  একই আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী সদর উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দোগাছি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম এবার ঈদে জয়পুরহাট ও পাঁচবিবি শহরে পোস্টার সাঁটিয়েছেন।

দিনাজপুর প্রতিনিধি বিপুল সরকার সানি জানান, জেলার গোর-এ শহীদ বড় ময়দানে এবছর প্রায় দুই লাখ মানুষ একসঙ্গে ঈদের নামাজ পড়েছেন। এই নামাজে অংশ নেন জাতীয় সংসদের হুইপ ও আওয়ামী লীগের স্থানীয় সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিম। নামাজের পর এলাকাবাসীর সঙ্গে কোলাকুলি ও কুশল বিনিময়ের মধ্য দিয়ে ঈদের গণসংযোগ চালান তিনি।

ঈদ উপলক্ষে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখছেন সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদঈদ উপলক্ষে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখছেন সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ

যশোর প্রতিনিধি তৌহিদ জামান জানান, যশোরের ৬টি আসনের মধ্যে এখনও সবগুলো আসনে প্রার্থীদের নির্বাচনি তৎপরতা চোখে পড়ছে না। তবে যশোর সদরে (যশোর-৩) জেলা আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কর্মসূচিতে সবসময়ই নেতা-কর্মীদের পাশে আছেন এ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ। সোমবার তিনি এলাকাবাসীর সঙ্গে রাস্তার ওপরে ঈদের নামাজ আদায় করেন এবং দিনভর গণসংযোগ চালিয়ে সন্ধ্যায় ঢাকায় ফেরেন। এ আসনে বিএনপির কোনও নেতাকে ঈদ উপলক্ষে গণসংযোগ চালাতে দেখা যায়নি।

ফরিদপুর প্রতিনিধি জানান, ঈদে আওয়ামী লীগের বড় নেতাদের এবার জেলায় দেখা যায়নি। ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনের এমপি এলজিআরডি মন্ত্রী ইন্ঞ্জিনিযার খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ফরিদপুর-২ (নগরকান্দা, সালথা) আসনের এমপি সংসদ উপনেতা সৈয়েদা সাজেদা চৌধুরী কেউই নির্বাচনি এলাকায় ছিলেন না। অপর দিকে ফরিদপুর-৪ আসনের সাবেক দলীয় এমপি কাজী জাফরুল্লাহ ঈদ উপলক্ষে এলাকায় ৬ হাজার শাড়ি বিতরণ করলেও ঈদ করেন ঢাকায়। তবে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হলেও গত নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করা মুজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন ঈদের সময় এলাকাবাসীর মধ্যে বিভিন্নরকম বস্ত্র বিতরণ করেন।

বিএনপির সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, সাবেক এমপি শাহ মো. আবু জাফর, প্রয়াত কে এম ওবায়দুর রহমানের কন্যা শামা ওবায়েদকেও এবার ঈদের সময় এলাকায় দেখা যায়নি।

নওগাঁ প্রতিনিধি আবদুর রউফ পাভেল জানান, নওগাঁ-৫ আসনে একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকিট পেতে দলটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত আব্দুল জলিলের ছেলে নিজাম উদ্দীন জলিল (জন) নিজ নির্বাচনি এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন। ঈদ ও রোজাকে কাজে লাগিয়ে মাঠে সরব আছেন তিনি। তার দলীয় প্রতিপক্ষ একই আসনের বর্তমান এমপি মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেকও নিয়মিতভাবে দলীয় কর্মসূচিসহ এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। একই আসনে বিএনপির গতবারের মনোনয়ন পাওয়া আব্দুল লতিফ গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। তাছাড়াও ইফতার মাহফিলের মাধ্যমে সক্রিয় আছেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম ধলু এবং জেলা বিএনপির সভাপতি নজমূল হক সনি। জেলার অন্য আসনগুলোতেও চলছে মনোনয়ন প্রত্যাশী তরুণদের নানারকম কর্মসূচি।

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি মতিউর রহমান জানান, ‘ঈদের খুশি ভাগাভাগি’ নামের একটি মঞ্চ বানিয়ে আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সালাউদ্দিন মাহমুদ জাহিদ (এসএম জাহিদ) ব্যতিক্রমী প্রচারণা চালিয়েছেন। এখানে সবাইকে মিষ্টিমুখ করিয়ে মানিকগঞ্জ-১ আসনে নিজেকে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মেলে ধরার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। তাকে ঘিওর ও শিবালয়েও ঈদের দিনে নির্বাচনি প্রচারণা চালাতে দেখা গেছে।বাংলা ট্রিবিউন

Facebook Comments
Please follow and like us:
একই রকম সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক ----- ------ মো: আবু শোয়েব এবেল ....... ...মোবাইল: ০১৭১৫-১৪৪৮৮৪ ------------------------- -

ইউনাইর্টেড প্রির্ন্টাস,হোল্ডিং নং-০, দোকান নং-০, শহীদ নাজমুল সরণী,সাতক্ষীরা অফিস যোগাযোগ ০১৭১২৩৩৩২৯৯ e-mail: crimebarta@gmail.com