জুলাই ২, ২০১৭
চররুহিতা মেম্বারের এ কেমন বিচার

ক্রাইমবার্তা রিপোট: আলমগীর হোসেন লক্ষ্মীপুর থেকে:  এক যুবকের সঙ্গে নাজমা আক্তারের অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ তোলে তার স্বামী মরণ আলী, বিষয়টি চররুহিতা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের মেম্বার গোফরান আলীকে জানানো হয়।
এ পর মেম্বারের নিদের্শে পিতা আমির হোসেনসহ তিনজনকে দড়ি দিয়ে পিছমোড়া করে বেধেঁ ইউপি সদস্য কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ইউপি সদস্য ও চৌকিদার সোলেয়মান ,পিতা আমির হোসেন ও চাচাতো ভাই রুবেলকে লাঠি দিয়ে পেটান। এবং নাজমা আক্তারকে গালিগালাজ করেন এবং চড়-থাপ্পড় মারেন,। ক্ষোভে ও লজ্জায় আত্মহত্যার করার ইচ্ছা জাগে নাজমার ।16
এর পর তাদের সারা রাত্রিতে কার্যালয়ে বেঁধে রাখার অভিযোগ করেন নাজমা আক্তার। পরের দিন শনিবার সকাল ১০ ঘটিকার দিকে শর্ত দিয়ে সাদা কাগজে মুছলেখা দিয়ে ছেড়ে দেন।
দিন মজুর নাজমা আক্তারের পিতা গণমাধ্যমকর্মীদের জানান , আমার আপন ভাতিজা রুবেল কমল নগর উপজেলা চরলঞ্চেন এলাকা থেকে গত ৩০ ই জুন দুপুর ১২ টার দিকে আমাদের বাড়িতে বেড়াতে আসে, ঘটনার পরিক্রমে ভাতিজা জ¦রে আক্রান্ত হয়ে পড়লে তাকে বাড়িতে যেতে দেওয়া হয়নি। এতে সেই আমার ঘরে থেকে যায়। শুক্রবার রাত ১০ ঘটিকার দিকে আমার মেয়ের জামায় মরণ আলী এলাকার লোকজন নিয়ে আমার নিজ ঘরে আমার ভাতিজার সাথে অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ তুলেন, ঘরের ভিতর প্রবেশ করে আমাদের তিনজন কে বেঁেধ নিয়ে যায়। লোক লজ্জায় সমাজে এখন মুখ দেখাতে পারি না। মনে চাই আত্মহত্যা করি।
নাজমা আক্তার জানান, প্রেম করে ৭ বছর আগে এলাকার শাহআলমের পুত্র মরণ আলীর সাথে আমার বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই। কয়েক মাস না যেতে যৌতুকের জন্য আমার পরিবারকে চাপ সৃষ্টি করে। টাকা দিতে আমি অপরাগত প্রকাশ করি । এতে আমাকে একের পর এক নির্যাতন করতে থাকে মরণ আলী, এবং মদ ,জুয়া, সাথে একের পর এক লিপ্ত হইতে থাকে। এতে আমি বাধাঁ দিলে আমাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করে। এতে আমি নিরুপায় হয়ে লক্ষ্মীপুর অতিরিক্ত চীপ জুডিসিয়াল ম্যাস্ট্রেট আদালতে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করি ।এতে মরন আলী ক্ষিপ্ত হয়ে আমার চাচাতো ভাই সাথে অবৈধ সর্ম্পকের কথা তুলে সমাজের মধ্য হেয় পতিপন্ন করে। মামলা তুলে নেওয়ার প্রতিশ্রুতি নিয়ে সকালে আমাদেরকে চেড়ে দেয় মেমম্বার গোফরানামঝি।
এ বিষয়ে মেম্বার গোরপান মাঝি সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, গ্রাম্য সালিশে কিছু ভয়ভীর্তি না দেখালে সমাজের বিচার করাটা মশকিল হয়ে পড়বে। এতে সমাজের বিচার করা যাবে না।

Facebook Comments
Please follow and like us:
একই রকম সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক ----- ------ মো: আবু শোয়েব এবেল ....... ...মোবাইল: ০১৭১৫-১৪৪৮৮৪ ------------------------- -

ইউনাইর্টেড প্রির্ন্টাস,হোল্ডিং নং-০, দোকান নং-০, শহীদ নাজমুল সরণী,সাতক্ষীরা অফিস যোগাযোগ ০১৭১২৩৩৩২৯৯ e-mail: crimebarta@gmail.com