বৃহস্পতিবার , ২ জুলাই ২০২০

ব্রহ্মরাজপুরে স্কুল ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করায় দুই যুবক আটক : থানায় মামলা

ক্রাইমবার্তা রিপোট:সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ব্রহ্মরাজপুরে ইভটিজিংয়ের অপরাধে বুধবার  রাতে পুলিশের হাতে ২ যুবক আটক হয়েছে।  এরা হলো ব্রহ্মরাজপুর কালেরডাঙ্গা গ্রামের মোঃ আব্দুস সালাম গাজীর  পুত্র মোঃ আনিছুর রহমান সাজু (২৫) ও একই গ্রামের  মোঃ আব্দুর রশিদ সরদারের পুত্র আল-আমিন (২২)।  তবে এ ঘটনার প্রধান আসামী কালেরডাঙ্গা গ্রামের মোঃ আব্দুর রহিম মাষ্টারের পুত্র জি,এম আব্দুল্লাহ আল-গালিবকে পুলিশ এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি।yku,

ব্রহ্মরাজপুর পুলিশ ক্যাম্পের  ইনচার্জ এস, আই এমদাদুল হক ও টু আই সি এ, এস, আই সৈয়দ আলী শেখের নেতৃত্বে আটককৃতদের বাড়ীতে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। জানা যায়, ব্রহ্মরাজপুর চেয়ারম্যান বাড়ী এলাকার স্কুল পড়ুয়া এক মেয়েকে যাতায়াতের  পথে ওই ৩ ইভটিজার ও তাদের সাঙ্গ পাঙ্গরা প্রায় সময় উত্ত্যক্ত করতো।  এই ঘটনার জেরে স্কুল পড়ুয়া ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দেয়।  এ নিয়ে ইতিপূর্বে জাতীয় সহ বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হলে প্রশাসনের ব্যাপক টনক নড়ে।  এদিকে ইভটিজিংয়ের ঘটনায় বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমনের আইনের  ২০০৩ সালের সংশোধনী ১০ ধারায় ৩ জনকে আসামী করে একটি মামলা হয়েছে।  মামলা নং-১৮।  সাতক্ষীরা থানার অফিসার ইনচার্জ মারুফ আহম্মদ ঘটনার সত্যতা  স্বীকার করে জানান, ইভটিজিং এর মূলহোতা আব্দুল্লাহ আল-গালিবকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। শুধু  তাই নয় ইভটিজিংকারীরা কেউ রেহাই পাবে না বলেও তিনি জানান ।
একটি সূত্র জানায়, ব্রহ্মরাজপুর বাজার সংলগ্ন ডিবি ইউনাইটেড হাইস্কুল ও ডিবি গার্লস হাইস্কুলের ছাত্রীরা স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে বহিরাগত ও বখাটে যুবকরা বিভিন্নভাবে উত্ত্যক্ত করছে। কেউ প্রতিবাদ করার চেষ্টা করলে তাকে মারধর করার হুমকি-ধামকি ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করছে। স্কুল শুরু হওয়ার আগে, টিফিনের সময় ও স্কুল ছুটির পর যাতায়াতের সময় ইভটিজিংয়ের শিকার হচ্ছে ছাত্রীরা। এসব ছাত্রী প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময়ও তাদের পিছু ছাড়ে না বখাটেরা। বিশেষ করে ওই এলাকার ৪ যুবক এই ইভটিজিংয়ের নেতৃত্ব দিতো। এরা হলো, ব্রহ্মরাজপুর ইউনিয়নের কালেরডাঙ্গা গ্রামের মোঃ আব্দুর রহিম মাস্টারের পুত্র জি.এম আব্দুল্লাহ আল-গালিব (২৫), একই গ্রামের মোঃ আব্দুস সালাম গাজীর পুত্র মোঃ আনিছুর রহমান সাজু (২৮) ও একই গ্রামের মোঃ আব্দুর রশিদ সরদারের পুত্র আল-আমিন (২৩) এবং আশাশুনি উপজেলার কুল্যা গ্রামের মোঃ আনারুল ইসলামের পুত্র মোঃ আরিফ হোসেন (২২)। এদের বিরুদ্ধে এলাকায় অভিযোগের কোনো অন্ত নেই। ইতিমধ্যে তারা বহু ঘটনার জন্ম দিয়েছে।  তাদের গ্রেফতারে এলাকায় সু-বাতাস বইছে।

 

About ক্রাইমবার্তা ডটকম

Check Also

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন চেয়ারম্যান আব্দুল হামিদ সরদার –

কলারোয়া (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি ॥কলারোয়ার কেরালকাতা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান কলারোয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *