উন্নয়নের নামে টাকা কামানোই ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশ্য

ক্রাইমবার্তা রিপোট:ভরাট হওয়া খাল সংস্কার না করে নুতন করে ড্রেন নির্মাণ করার কারণেই ঢাকায় ‘জলজট-জলাবদ্ধতা’ সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন মির্জা আব্বাস।

রোববার বিকালে জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে এক সমাবেশে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকার সাবেক মেয়র এমন অভিযোগ করে বলেন. ‘ঢাকা শহরে যে ড্রেন আছে তা যথেষ্ট আছে। জলাবদ্ধতা নিরসনে নতুন ড্রেনের প্রয়োজন নেই। উনারা (ক্ষমতাসীনরা) অবৈধভাবে টাকা উপার্জন করার জন্য অন্যায়ভাবে ঢাকা শহরের রাস্তা-ঘাটগুলো কেটেছে। আসলে উন্নয়নের নামে মাল (অর্থ) কামানোই তাদের মূল লক্ষ্য’।

মির্জা আব্বাস বলেন, ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা বেড়েছে আগের চাইতে অনেক। যদি ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা দূর করার জন্যে সরকারের সদিচ্ছা থাকে তারা যেটা করতে পারতেন তা হচ্ছে, যেখান দিয়ে আমাদের শহরের পানিগুলো নেমে যায় অর্থাৎ যা ভরাট করে ফেলেছে ভুমিদুস্যরা। সেই জায়গাগুলো ক্লিয়ার (উন্মুক্ত) করে দিলেই কিন্তু এতো ড্রেন নির্মাণ করতে হয় না।

যুবদল দক্ষিণের উদ্যোগে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, যুবদল দক্ষিণের নেতা সাঈদ হাসান মিন্টু ও মিজানুর রহমান টিপুর মুক্তির দাবিতে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি রফিকুল আলম মজনুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম মওলা শাহীনের পরিচালনায় এতে আরও বক্তব্য দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতা মোরতাজুল করীম বাদরু, মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ, মাহবুবুল হাসান ভুঁইয়া পিংকু, মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি ইউনুস মৃধা, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান প্রমুখ বক্তব্য দেন।

একই অনুষ্ঠানে ফরহাদ মজহার অপহরণের ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, আপনাকে বলব, আপনি তো সব কিছুই জানেন। শোনা যায় আপনি উদ্ধারকাজে যথেষ্ট সক্রিয় ভূমিকা রেখেছেন এবং সেদিন পুলিশকে অনেকটা তৎপর করেছেন, পুলিশ তাকে উদ্ধার করেছে। নিশ্চয়ই আপনি জানেন কারা করেছে। তাদের মুখোশটা খোলাসা করতে আপনার সমস্যা কোথায়? এই রহস্যের জ্বালে গোটা জাতিকে আতংকের মধ্যে আর রাখবেন না।

হাসিনা কী জিনিষ দেখেছি-দুদু: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে বিএনপির নেতৃত্বে ২০ দল নির্বাচনে যেতে চায় না বলে জানিয়েছেন দলটির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা কী জিনিস, তার অধীনে কেমন নির্বাচন হতে পারে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি জাতি তা দেখেছে।

রোববার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে দুদু এসব কথা বলেন। জাতীয়তাবাদী দেশ বাঁচাও, মানুষ বাঁচাও এই কর্মসূচির আয়োজন করে। এতে বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুল, সহ তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক কাদের গনি চৌধুরী, ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া, সংগঠনের সভাপতি মোস্তফা গাজীর প্রমুখ বক্তব্য দেন।

Check Also

পেঁয়াজ নিয়ে ভারতের সিদ্ধান্ত ‘রক্তের বন্ধন’ এর প্রতিফলন হয় না ………আ স ম রব

বাংলাদেশকে বিন্দুমাত্র অবহিত না করে ভারত পেঁয়াজ রপ্তানির নিষেধাজ্ঞা প্রদান করায় ভারতের সাথে বাংলাদেশের সরকার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *