জুলাই ১০, ২০১৭
ডিমলায় ব্রীজ বিকল্প বাশের সাকো নিয়ে রমরমা বানিজ্য,শিক্ষার্থীরাসহ এলাকাবাসী অসহায়

ক্রাইমবার্তা রিপোট:মহিনুল ইসলাম সুজন, ক্রাইমরিপোর্টার নীলফামারী ॥
নীলফামারীর ডিমলায় নাউতরা ইউনিয়নের নাউতরা নদীর উপর ব্রীজ নির্মানের ধীর গতিতে। ব্রীজ নির্মানাধীন চলা অবস্থায় স্থানীয়দের চলাচলের জন্য ব্রীজ বিকল্প বাশের সাকো তৈরি করা হলেও তা নিয়ে শুরু হয়েছে বানিজ্য। একটি প্রভাবশালী মহল গত বেশ কদিন থেকে অহেতুক সময় অসময় লোক পারাপাড়ের ভীড় দেখা মাত্র বাশের সাকো সংস্কারের নাম করে তা বর্তমানে ঝুকিপুর্নের দোয়াই দিয়ে রমরমা বানিজ্যের অভিযোগ করেছে এলাকাবাসী।আর এতে শিক্ষার্থীরাসহ এলাকাবাসী হয়ে পড়েছেন অসহায় ।
সরেজমিনে রোববার দুপুরে দেখা যায় যে, বাশের সাকোটির এক দিক দিয়ে খুলে মেরামত করার নামে সাকো বিকল্প নৌকা দিয়ে তিব্বি রমরমা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন ওই প্রভাবশালী মহলটি ও তাদের লোকেরা ।এখানে প্রতিজনকে একবার পার হতেই দিতে হয় ১০টাকা করে। এবং সারাদিন এই মহলটির কাছে এলাকার হাজার হাজার সাধারন মানূষ বিকল্প পথ না থাকায় বাধ্য হচ্ছেন টাকা দিয়েই পারাপাড় হতে।16
রবিবার দুপুর সেখানে ছোট নৌকায় ৪০জন মানুষ নিয়ে আসার সময় নৌকাটি মাঝ নদীতে ঢুবে যায়। পানি কম থাকার কারনে যে যেভাবে পেরেছে পাড়ে উঠে প্রানে বেচে গেছে। এ সময় অনেকের মত নাউতরা বালিকা স্কুল এ্যান্ড কলেজের শতাধিক ছাত্রীকেও চরম বিপাকে পড়তে দেখা যায়।
নৌকার মাঝি একরামুল হক বলেন সকাল থেকে ছোট নৌকায় ২ হাজার টাকা উত্তোলন করেন। অপরদিকে বাশের সাকো মেরামত করে অটোবাইক স্টানের নামে প্রতিটি মোটর সাইকেল প্রতি ২০টাকা, সাইকেল ১০টাকা ও প্রত্যেক জনপ্রতি বাশের সাকো পারাপাড়ে ১০টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। নাউতরা ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম লেলিন এ বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, নাউতরা ব্রীজের কাজ চলমান থাকার কারনে সাময়িক সমস্যা হচ্ছে। তিনি দাবী করেন ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে বাশের সাকো মেরামতের কাজ চলছে! উপজেলা প্রকৌশলী আবু জাফর মোহাম্মদ সালেহ বলেন, নাউতরা ব্রীজটি ২ কোটি ৪৬ লাখ টাকা ব্যায়ে নির্মান করা হচ্ছে। আগামী ডিসেম্বর মাসে ব্রীজটি কাজ শেষ হতে পারে।
ডিমলায় সড়ক দুর্ঘটনায় কিশোরে নিহত

মহিনুল ইসলাম সুজন, ক্রাইমরিপোর্টার নীলফামারী ॥
নীলফামারীর ডিমলায় রোববার বিকালে ডালিয়া রংপুর রাস্তায় ডালিয়া বাজারে চলন্ত বাসের উপর থেকে পড়ে কিশোর আব্দুল খালেক (১৪) নামের এক হেলপারের মৃত্যু হয়েছে। ঈদের পরের দিন আব্দুল খালেক পিতার উপর অভিমান করে বাড়ী থেকে বের হয়ে যায়। সে লালমনিরহাট জেলার হাতিবান্ধা উপজেলার মিলন বাজারের সমছের আলীর পুত্র।নিহতের পিতা সমছের আলী বলেন, গত ঈদের দিন রাগ করে খালেক বাড়ী থেকে বের হয়ে গিয়ে রংপুর নীলফামারীর একটি বাসে হেলপার হিসেবে কাজ করছিল।রবিবার বাসটি সুটিবাড়ী থেকে রংপুর যাচ্ছিল এমন সময় সে ডালিয়া বাজারের কাছে গাড়িটির গেট থেকে হাত ফষলে পরলে পিছনের চাকায় পৃষ্ট হয়ে নিহত হয় । খালিশা চাপানি ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, বিকালে ডালিয়া বাজারে বাস থেকে পড়ে এক কিশোর হেলপারের মৃত্যু হয়েছে।
ডিমলা থানার ওসি তদন্ত মফিজ উদ্দিন শেখ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নিহত খালেকের পরিবারের কোন দাবি না থাকায় লাশ তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে ।

Facebook Comments
Please follow and like us:
একই রকম সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক ----- ------ মো: আবু শোয়েব এবেল ....... ...মোবাইল: ০১৭১৫-১৪৪৮৮৪ ------------------------- -

ইউনাইর্টেড প্রির্ন্টাস,হোল্ডিং নং-০, দোকান নং-০, শহীদ নাজমুল সরণী,সাতক্ষীরা অফিস যোগাযোগ ০১৭১২৩৩৩২৯৯ e-mail: crimebarta@gmail.com