কলারোয়ায় জঙ্গী ও মাদকের কোন স্থান নেই

ফিরোজ জোয়ার্দ্দার,সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি:সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ‘জঙ্গী-মাদক প্রতিকারে, জনতা পুলিশ এক কাতারে। পুলিশ জনগণের বন্ধু, অপরাধীদের দুশমন। সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা পুলিশের কাজ। আর পুলিশের পাশাপাশি সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠায় কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সদস্যরা কাজ করে চলছে। কমিউনিটি পুলিশ মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, নির্মূলে পুলিশের পাশাপাশি কাজ করে যাবে। ১৯৯২ সালে প্রথমে একটি জেলায় শুরু পুলিশিং ফোরামের কাজ। পরবর্তীতে ২০০০ সাল থেকে সারাদেশ ব্যাপী চালু হয় তাদের কার্যক্রম। এই কমিটি পুলিশের সাথে সহযোগী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। যে সংগঠনটি সম্পূর্ন অরাজনৈতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। যার মাধ্যমে বাংলাদেশ উন্নত দেশে রুপান্তিত করতে সকলকে এক কাজ করতে হবে। তাই আসুন সমাজ থেকে সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ, মাদক, বাল্যবিবাহ, অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। এসবের কোন স্থান নেই। কমিউনিটি পুলিশিং ডে ২০১৭ উদযাপন উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভায় থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব কুমার নাথ এসব কথা বলেন। কলারোয়া থানা পুলিশের আয়োজনে শনিবার সকাল ১০টায় থানা চত্বর থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে পৌর বাজরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব কুমার নাথের সভাপতিত্বে থানা চত্বরে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন। এসময় তিনি বলেন, ষড়যন্ত্র ছাড়া বিএনপির কোনো কর্মসূচী নেই। ষড়যন্ত্রের রাজনীতি করতে করতে বিএনপি নিজেই এখন ষড়যন্ত্রের চোরাবালীতে আটকে গেছে। দিক নির্দেশনাহীন অবস্থায় দলটি ক্রমশ একটি ফ্যাসিস্টি জঙ্গী পরগাছা সংগঠনে পরিণত হয়েছে। বিএনপির জন্ম ক্যান্টনমেন্টের ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে। দলটি কখনোই জনগণের রায় নিয়ে ক্ষমতায় আসেনি, এসেছে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে। ষড়যন্ত্রের মাধ্যমের দেশের উন্নয়নের গতির ধারা বিএনপি ধ্বংস করছে, এখনো করতে চায়। উপজেলা চেয়ারম্যান স্বপন আরও বলেন. ২০১৩ সালে বিএনপি-জামায়াত দেশে গণতন্ত্রের নামে চলন্ত বাসে আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে। সেদিন ছিল আমাদের পুলিশ আজও আছে পুলিশ। আর এই পুলিশ দেশের মানুষের সম্পূর্ন নিরাপত্তা দিয়ে গেছে। যার রাতের আঁধারে রাস্তায় সরকারি গাছ কেটে নাশকতা সৃষ্টি ও মানুষকে কুপিয়ে মেরেছে তাদেরকে পুলিশ আটক করে বিচারের মুখোমুখী দাঁড় করেছেন। তাই সকলকে বলবো দেশে জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাস ও মাদককে রুখতে পুলিশকে সঠিক তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করুন। তাহলে দেখবেন সমাজ থেকে অপরাধ কমে যাবে। থানার (ওসি তদন্ত) জিয়াউর রহমানের পরিচালনায় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি’র বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের ধর্ম-বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্জ্ব আরাফাত হোসেন, জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ্জ্ব শেখ আমজাদ হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম লাল্টু, অধ্যাপক্ষ ইউনুছ আলী খান প্রমুখ। এছাড়া অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যানগন শামসুদ্দিন আল মাসুদ বাবু, আবুল কালাম আজাদ, শেখ ইমরান হোসেন, মাস্টার নূরুল ইসলাম, আফজাল হোসেন হাবিল, এসএম মনিরুল ইসলাম, মনিরুল ইসলাম মনি, আসলাম খান, মাহবুবুর রহমান মফে, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলামসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে আগত কমিউনিটিং পুলিশ ও থানা পুলিশের সদস্যবৃন্দ। এদিকে সন্ধ্যায় থানা পুলিশের আয়োজনে মনোমুগ্ধ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

Facebook Comments
Please follow and like us: