অস্তিত্ব সংকটে সাতক্ষীরার প্রাণসায়ের খাল

স্টাফরিপোটর :অস্তিত্ব সংকটে সাতক্ষীরা শহরের মাঝ দিয়ে প্রবাহিত এক সময়ের খর¯্রােত প্রাণয়ের খাল । খালের দুই মুখে অপরিকল্পিতভাবে স্লুইস গেট নির্মাণ, দুই তীর জবরদখল করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বসতি স্থাপন করা, খালের মধ্যে বর্জ্য, ময়লা-আবর্জনা ফেলাসহ নানা কারণে খালটি হুমকীর মুখে পড়েছে। বর্তমানে খালটিতে সিমীত পরিমাণে পাণি প্রবাহ চালু রয়েছে।
বিভিন্ন তথ্যে পাওয়া য়ায়, ১৮৬৫ সালে অবিভক্ত বাংলার সাতক্ষীরার জমিদার প্রাণনাথ রায় শিক্ষার প্রসার ঘটাতে পি এন হাইস্কুল এন্ড কলেজ এবং ব্যবসা বাণিজ্যের সুবিধার্থে প্রাণসায়ের খাল খনন করেন।
সাতক্ষীরা সদর উপজেলার খেজুরডাঙ্গি থেকে সাতক্ষীরা শহর হয়ে এল্লারচর পর্যন্ত এ খালের দূরত্ব প্রায় ১৩ কিলোমিটার। প্রথমাবস্থায় এ খালের চওড়া ছিল ২০০ ফুটের বেশি। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সে সময় বড় বড় বাণিজ্যিক নৌকা এসে ভিড় জমাতো এ খালে। এর ফলে সাতক্ষীরা শহর ক্রমশ সমৃদ্ধশালী শহরে পরিণত হয়।
আর ১৯৯০ সালের প্রথম দিকে স্থানীয় বাসিন্দাদের মতামতকে প্রাধন্য না দিয়ে বন্যার পানি নিয়ন্ত্রণের নামে খালের দুই প্রান্তে পানি উন্নয়ন বোর্ড স্লুইস গেট নির্মাণ করে। এতে খালে স্বাভাবিক জোয়ার-ভাটা বন্ধ হয়ে যায় এবং এটি বদ্ধ খালে পরিণত হয়।
এরপর জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ডের আওতায় ২০১২ সালের ১৮ অক্টোবর খালটি খনন শুরু করা হয়।
৯২ লাখ ৫৫ হাজার টাকায় ১০ কিলোমিটার খাল সংস্কারের টেন্ডার পায় ঢাকার মেসার্স নিয়াজ ট্রেডার্স। কিন্তু অভিযোগ আছে যে, নামমাত্র খনন করে প্রকল্পের সিংহভাগ টাকাই লোপাট করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কিছু অসাধু কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার। খাল খননের নামে খালের দুই ধারে শত শত গাছ কেটে ফেলা হয়। বর্তমানে খালটি বর্জ্য, ময়লা-আবর্জনা ফেলার স্থানে পরিণত হয়েছে।
সাতক্ষীরা পৌরসভার মেয়র আলহাজ¦ তাজকিন আহমেদ চিশতি বলেন, প্রাণসায়ের খাল দখলমুক্ত করতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। খাল রক্ষার্থে মাইকিং করে ইতিমধ্যে পৌরবাসীকে জানানো হয়েছে, যাতে কেউ কোনো ময়লা আবর্জনা খালের ভেতরে না ফেলেন। সামনে মার্চ মাস থেকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু করা হবে।
সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দীন বলেন, আগামি মার্চ থেকে খালের দু’ধারে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু করা হবে। খালের দুপাশের্^ বিনোদন পার্ক গড়ে তোলা হবে। এছাড়া জরুরিভাবে প্রাণসায়র খাল খননের চেষ্টা আমরা করে যাচ্ছি। বরাদ্দ চেয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। আর বরাদ্দ পেলেই দ্রুত সংরক্ষণের উদ্যোগ নেবে।
স্থানীয় অভিজ্ঞমহলের মতে প্রাণসায়রের দু’মাথায় বেতনা মরিচ্চাপের সংযোগস্থলের স্লুইস গেট অপসারণ করে খোলপেটুয়া পর্যন্ত সকল বাধা অপসারণ এবং শাখরা স্লুইসগেট অপসারণ করে ইছামতির জোয়ার-ভাটার পানি প্রাণসায়র দিয়ে প্রবাহিত করতে পারলে প্রাণসায়রের অস্তিত্ব রক্ষা পাবে।

Facebook Comments
Please follow and like us: