নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত হন: বিএনপিকে কাদের # ওবায়দুল কাদের এক জন মিথ্যুক:রিজভী

ক্রাইমবার্তা ডেস্করিপোর্ট:  ঢাকা: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আন্দোলনের পাঠ বিএনপির চুকে গেছে। আমি বিএনপিকে পরামর্শ দেব নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত হতে। বিএনপিকে নির্বাচন থেকে সরিয়ে দেয়ার কোন খায়েস আওয়ামী লীগের নেই। নিবন্ধিত দল হিসেবে নির্বাচন করবে এমন অধিকার তাদের আছে। এখন বেগম জিয়াকে ছেড়ে দেয়ার বিষয়টি আমাদের হাতে নেই। লিগ্যাল বেটলের মাধ্যমে বেগম জিয়া বের হলে এখানে আমাদের কোন বক্তব্য নেই।
আজ শনিবার সকালে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ৪ লেনের উন্নীতকরণের কাজ পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনকে আন্দোলনের মাধ্যমে জেল থেকে মুক্ত করবেন, সেই বাস্তবতা বাংলাদেশে নেই।  বাংলাদেশে কাউকে আন্দোলন করে মুক্ত করবে সেই বাস্তবতা নেই এটা বিএনপিকে বুঝতে হবে। তারা বেগম জিয়া গ্রেপ্তারের পর ভেবেছিল বাংলাদেশ আন্দোলনে উত্তাল হবে। কিন্তু তাদের সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি।
তিনি বলেন, আদালতের সিদ্ধান্তের বিপরীতে বিএনপি যে আন্দোলন করছেন, সেটি আদালত অবমাননা। আদালতের রায়ে তাদের নেত্রী বেগম জিয়া দণ্ডিত হয়েছেন, আদালতের বিরুদ্ধে তো তারা আন্দোলন করতে পারেন না। সেটিও তাদের অন্যায়, পুলিশের সঙ্গে তারা সংঘাত করতে চান, রাস্তা বন্ধ করে অনশন করবেন এটি কোন আইনসিদ্ধ বিষয় নয়।
এসময় মন্ত্রীর সঙ্গে সড়ক ও জনপথের ঢাকা বিভাগীয় প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খান, প্রকল্প পরিচালক মো. ইসহাকসহ সড়ক ও জনপথের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।  #

 

ঢাকা: বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, শেখ হাসিনার দুর্বিনীত দুঃশাসনকে প্রলম্বিত করার জন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ভোটারবিহীন একতরফা নির্বাচনের দিকে এগিয়ে গেলে দেশে চরম অরাজকতা সৃষ্টি হবে। এজন্য দায়ী থাকবেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার।
রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আজ শনিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দেওয়া প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদার বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, নির্বাচনী মাঠ সমতল হওয়ার প্রথম শর্ত হল খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়া ও সহায়ক সরকারের মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়া।
তিনি বলেন, সর্বপ্রথম দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সহায়ক সরকারের মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার মধ্যেই কেবলামাত্র নির্বাচনী মাঠ সমতল হওয়ার প্রথম শর্ত পূরণ হবে।
রিজভী বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার কি একতরফা নির্বাচনের দিকেই এগিয়ে যাচ্ছেন ? তাহলে নির্বাচন জিকিরের তো দরকার নেই। নির্বাচনী সিডিউল ঘোষণা করে পরের দিনেই ক্ষমতাসীন দলকে বিজয়ী ঘোষণা করলেই তো পারেন।
বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি থেকে টেনে হিঁচড়ে নেতাকর্মীদেরকে গ্রেফতার করা হচ্ছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, নেতাকর্মীদের বাড়ীতে হানা দিয়ে তাদের না পেয়ে স্ত্রী-সন্তান-পিতা-মাতা কিংবা ভাই-বোনকে গ্রেফতার করা হচ্ছে। থানায় নিয়ে গিয়ে তাদের ওপর চালানো হচ্ছে নির্যাতন। তিনি আরো বলেন, নারী দিবসে প্রধানমন্ত্রী বলছেন-নারীদের অর্থনৈতিক স্বাধীনতার কথা। অথচ তাঁর দলের সোনার ছেলেদের উৎপীড়ণে ‘নারী উন্নয়নের বিভৎস রুপটি’ ৭ মার্চ দেশবাসী প্রত্যক্ষ করলো। ৭ মার্চ নারী লাঞ্ছনা আওয়ামী উন্নয়নের একটি নমুনা।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপি চেয়ারপারনের উপদেষ্ঠা আতাউর রহমান ঢালী, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুদু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, সহ দপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমেদ, তাইফুল ইসলাম টিপু প্রমুখ।

Facebook Comments
Please follow and like us: