সুন্দরবনে হরিণ শিকার নিয়ে তুলকালাম: কোটিপতি সাত্তার মোড়লের গ্রেফতারের দাবীতে সাতক্ষীরায় মানবন্ধন

সাতক্ষীরা সংবাদদাতাঃ পশ্চিম সুন্দরবনে হরিণ শিকার নিয়ে তুলকালাম চলছে। প্রশাসনের সহয়তায় স্থানীয় কিছু ব্যক্তি হরিণ শিকার করার অভিযোগ উঠেছে। “হরিণ শিকার বন্ধ কর, বণ্যপ্রাণী রক্ষা কর, সুন্দরবন বাঁচাও’ শ্লোগানে” সুন্দরবনের কুখ্যাত হরিণ শিকারী, সুন্দরবন ও জীববৈচিত্র ধ্বংসকারী কোটিপতি সাত্তার মোড়লের শাস্তির দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার সাতক্ষীরায় মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। অভিযোগ আছে কোটিপতি সাত্তার মোড়ল সুন্দরবণের হরিণ শিকার করে প্রশাসনের বিভিন্ন দফতরে উপঢোকন পাঠাতো।
রোববার দিবাগত গভীর রাতে শোনা গেল সুন্দরবনে আন্তর্জাতিক চোরা শিকারি চক্রের হোতা সাত্তার মোড়লসহ ১৬/১৮ জনের একটি দল বিপুল পরিমান হরিণ শিকার করেছে। ঐ দলের প্রটেকশনে রয়েছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ৬ সদস্য। তারা সবাই মিলে রাতে ২টি হরিণের মাংস ভক্ষণ করেছে। আরো ২০টি হরিণ সাথে নিয়ে তারা এলাকায় ফিরে আসছে। এ খবরের একপর্যায়ে গভীর রাতে কোস্টগার্ড এবং বনবিভাগের যৌথ অভিযানে দোবেকী এলাকায় তাদেরকে আটক করা হয়। এরআগে গত শনিবার রাত ১০টার দিকে সাত্তার মোড়ল এই দলটি নিয়ে সুন্দরবনে প্রবেশ করে। ১৬ ক্যান বরফও ছিল তাদের সাথে। কিন্তু না সকালে এই তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করলো না কোন সংস্থা। যে বনবিভাগ কোস্টগার্ড অভিযান চালিয়েছে শোনা গেল তারাও চুপচাপ। রোববার রাত আড়াইটার পর থেকে সোমবার দিনভর একাধিক ব্যক্তি এমন খবর জানিয়েছে। মঙ্গলবার দিনভর এ বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সাত্তার মোড়ল ও তার দলবলকে নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। অনেকেই বিষয়টি নিয়ে কৌতুহলী হয়ে সাংবাদিকদের কাছে জানতে চেয়েছেন, সর্বশেষ পরিস্থিতি সম্পর্কে। কিন্তু আইন প্রয়োগকারী কোন সংস্থা এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত না করলেও আন্তর্জাতিক চোরা শিকারি চক্রের গডফাদার আব্দুস সাত্তার মোড়লের নামে এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। এতেই সাধারণ মানুষ হরিণ শিকারের ঘটনা সম্পর্কে কিছুটা আন্দাজ করতে পেরেছে বলে জানান।
রোববার গভীর রাত থেকে খবরটি এমনই ছিল যে, দলবেঁধে গত শনিবার রাতে হরিণ শিকারে যায় ওরা ১৬ জন। ১৬ ক্যান বরফ আর হরিণ মারার জন্য কয়েকটি বন্দুক নিয়ে সুন্দরবনে প্রবেশ করে হরিণখেকো সাত্তার মোড়লের দল। একে একে ২২টি হরিণ শিকার করে তারা। ২টি হরিণের মাংস রান্না করে খায়। ২০টি হরিণের ভূড়ি বের করে মাংস বরফে রাখে। এভাবেই হরিণ নিধন করছিলেন সাত্তার মোড়লের দল। এদলে ছিলেন আন্তর্জাতিক চোরা শিকারি চক্রের গডফাদার আব্দুস সাত্তার মোড়ল, তার ঘেরের কর্মচারি শ্যামনগর উপজেলার কদমতলা গ্রামের ইমান গাজীর ছেলে মঞ্জু গাজী ও পাতাখালি গ্রামের আমজাদ গাজীর ছেলে মহিবুল্লাহ গাজী, বন্দকাটি গ্রামের বাচ্চু, সিংহড়তলী গ্রামের ইউসুফ গাজী, হরিনগর গ্রামের বিকাশ মন্ডল, চুনকুড়ি গ্রামের আব্দুস সামাদ, রমজাননগর গ্রামের মৃত আব্দুল হামিদ সরদারের ছেলে আনারুল ইসলাম, পাতাখালি গ্রামের মফিজউদ্দিন গাজীর ছেলে আলী হোসেন, একই গ্রামের আমজাদ গাজীর ছেলে বাবলুসহ দুজন এসআই, দুজন এএসআই ও দুজন কনস্টেবল। এদের মধ্যে আনারুল, আলী হোসেন ও বাবলু পেশাদার শিকারি। এদিকে হরিণ শিকারের খবর পায় বনবিভাগ ও কোস্টগার্ড। তারা সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের দোবেকী এলাকা থেকে পুরো দলকে ঘিরে ফেলে। তবে হরিণ শিকারে যাওয়া পুলিশ সদস্য এসময় অভিযানে অংশ নেয় বলে অপর একটি সূত্র জানায়।
তবে শ্যামনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আব্দুল মান্নান জানান, সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের গহীনে বনদস্যু জাকির বাহিনীর সদস্যরা ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চুনকুড়ি নদী সংলগ্ন দোবেকী নামকস্থান উপ-পরিদর্শক লিটন মিয়া ও উপ-পরিদর্শক হাবিবের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টহল দল সেখানে অভিযান চালায়। এ সময় সেখান থেকে ৩টি জবাই করা হরিণ, ৩টি একনলা বন্দুক ও একটি নৌকাসহ উক্ত দুই চোরাশিকারীকে আটক করা হয়। তিনি আরো জানান, এঘটনায় আব্দুস সাত্তার মোড়লসহ তিনজনের নামে শ্যামনগর থানায় মামলা হয়েছে। মামলা নং ৩, তারিখ-৯-৭-২০১৮। মামলার অন্যতম মোস্ট ওয়ান্টেড আব্দুস সাত্তার মোড়ল পলাতক রয়েছে।

এদিকে সাতক্ষীরা সচেতন নাগরিক সমাজের আয়োজনে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন, মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ সুভাষ সরকার। মানববন্ধনে বক্তর‌্য রাখেন, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এড. আবুল কালাম আজাদ, সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের আহবায়ক এড. ফাহিমুল হক কিসলু, জেএসডির জেলা সাধারণ সম্পাদক সুধাংশু শেখর সরকার, জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক শেখ ওবায়েদুস সুলতান বাবলু, ডেইলি সাতক্ষীরা’র সম্পাদক হাফিজুর রহমান মাসুম, সাতক্ষীরা পৌর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রাশি, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অহিদুজ্জামান টিটু, আ’লীগ নেতা সবুর খান প্রমুখ। মানববন্ধন পরিচালনা করেন, গণফোরাম সাতক্ষীরা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আলীনুর খান বাবুল।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সাত্তার মোড়ল তালিকাভুক্ত চিহ্নিত হরিণ শিকারি। বাংলাদেশে যে পরিমান হরিণ শিকার করেছে তার অর্ধেক হরিণ শিকার করেছে সাত্তার মোড়ল নিজে। অথচ অজানা কারণে এতদিন পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় নি।

Facebook Comments
Please follow and like us: