রোহিঙ্গা ইস্যু আরো ভালোভাবে সামলানো যেত : সু চি# আমাদের সবাইকে সমানভাবে দেখতে হবে

ক্রাইসবার্তা ডেস্করির্পোটঃমিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা ইস্যু আরো ভালোভাবে সামলানো যেত বলে স্বীকার করেছেন মিয়ানমারের ডি ফ্যাক্টো নেত্রী অং সান সু চি।

বৃহস্পতিবার ভিয়েতনামের রাজধানী হ্যানয়ে আসিয়ানের ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামে এমন মন্তব্য করেন তিনি। রোহিঙ্গা সঙ্কটের পর বিষয়টি নিয়ে প্রথমবারের মতো ইতিবাচক কথা বললেন এই নেত্রী।

গত বছরের আগস্টে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের ৩০টি পুলিশ চেকপোস্ট এবং সেনাঘাঁটিতে হামলা চালায় আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি। এর পরেই রাখাইনের গ্রামগুলোতে অভিযানের নামে অত্যাচার-নির্যাতন চালায় মিয়ানমার সেনারা। রোহিঙ্গাদের নির্বিচারে গুলি করে হত্যা, নারীদের ধর্ষণ এবং রোহিঙ্গাদের বাড়ি-ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। এতে সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা মুসলিম নিজেদের বাড়ি-ঘর থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়।

সু চি বলেন, কিছু উপায় অবশ্যই ছিল যার মাধ্যমে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি আরও ভালোভাবে সামলানো যেত। সু চি আরও বলেন, আমরা বিশ্বাস করি দীর্ঘ মেয়াদী নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার জন্য আমাদের সবাইকে সমানভাবে দেখতে হবে। আমরা কোনো একটি নির্দিষ্ট পক্ষকে আইনের শাসনে সুরক্ষা দেওয়ার কথা ভাবতে পারি না।

তিনি তার বক্তব্যে রয়টার্সের দুই সাংবাদিকের প্রসঙ্গও তুলেছেন। গত সপ্তাহে ওই দুই সাংবাদিকের সাত বছর কারাদণ্ড ঘোষণার করে মিয়ানমারের একটি আদালত।

মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে দেশটির সেনাবাহিনীর নির্যাতনের ঘটনার অনুসন্ধান করতে গিয়ে রাষ্ট্রীয় গোপন নথি সংগ্রহের অভিযোগে ওই দুই সাংবাদিককে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

ওয়া লোন (৩২) এবং কিওয়াও সোয়ে ও-এর বিষয়ে তিনি বলেন, তারা সাংবাদিক বলে তাদের কারাদণ্ড দেয়া হয়নি।

তিনি বলেন, ‘মত প্রকাশের স্বাধীনতা সবারই আছে। এ বিষয়ে তাদের কারাদণ্ড দেয়া হয়নি। প্রকৃতপক্ষে এটা ছিল অফিসিয়াল সিক্রেট অ্যাক্টের আওতায় তাদের শাস্তি। তারা রাষ্ট্রীয় গোপণ নথি সংগ্রহ করেছিল। আমরা যদি সবাই আইনের প্রতি আস্থা রাখি তবে, ওই রায়ের বিপক্ষে তাদের আপিল করার সুযোগ রয়েছে। কেন এই রায় ভুল তার বিরুদ্ধে তাদের অবশ্যই প্রমাণ তুলে ধরতে হবে’।

১৯৯১ সালে নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হন সু চি। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই করে শান্তিতে নোবেল পান এই নেত্রী। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে মিয়ানমার সরকার রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর যে নির্যাতন-নিপীড়ন চালিয়েছে তার বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি।

ফলে ব্রিটিশ ট্রেড ইউনিয়ন, লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকস, ইউএস হলোকাস্ট মিউজিয়াম, ডাবলিন এবং যুক্তরাজ্যের চারটি শহরসহ বেশ কিছু সংস্থা সু চিকে দেয়া তাদের সম্মাননা ফিরিয়ে নিয়েছে। তবে নোবেল পুরস্কার প্রত্যাহারের নিয়ম নেই বলে এ যাত্রায় বেঁচে যান সু চি।

আরো পড়ুন: ২ সাংবাদিকের জেল : কী ছিল রয়টার্সের প্রতিবেদনে?

বিবিসি, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

মিয়ানমারে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির একটি আদালত।

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতার ঘটনা অনুসন্ধানের সময় রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তা লংঘনের দায়ে তাদের এ শাস্তি দেয়ার কথা জানিয়েছে আদালত।

পুলিশ তাদের গ্রেফতার করেছিল যখন তাদের হাতে অফিসিয়াল ডকুমেন্ট ছিলো এবং সেগুলো গ্রেফতারের আগ মুহূর্তেই পুলিশ তাদের হাতে দিয়েছিল।

দুই সাংবাদিকই নিজেদের নির্দোষ দাবি করে বলেছেন, পুরো বিষয়টিই পুলিশের সাজানো ছিলো।

মিয়ানমারের এই ঘটনাকে মুক্ত গণমাধ্যমের জন্য একটি পরীক্ষা হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

রায়ের পর ওয়া লোন বলেন, ‘আমি ভীত নই। আমি কোনো অন্যায় করিনি। আমি ন্যায়বিচার, গণতন্ত্র ও স্বাধীনতায় বিশ্বাস করি।’

কারাদণ্ড পাওয়া দুই সাংবাদিকই গত বছর ডিসেম্বর থেকে আটক রয়েছেন।

বিচারক ইয়ে লুইন বলেছেন, ‘এই দুজন উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবেই রাষ্ট্রীয় স্বার্থের ক্ষতি করেছেন।’

বিবিসি সংবাদদাতা নিক বিয়াকে ইয়াঙ্গুন থেকে জানিয়েছেন, অনেকের কাছে এ রায় মুক্ত গণমাধ্যম ও গণতন্ত্রের জন্য আরেকটি ধাক্কা বলে বিবেচিত হচ্ছে।

কেন আটক হয়েছিলেন দুই সাংবাদিক?

মিয়ানমারের গণহত্যার একটি ঘটনা অনুসন্ধান করেছিলেন রয়টার্সের দুই সাংবাদিক।

পরে তাদের আটক করে অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট লংঘনের অভিযোগ আনা হয়।

রয়টার্স দাবি করে, রাখাইনে দশ রোহিঙ্গাকে হত্যার বিষয়টি উদঘাটন করেছেন এই দুই সাংবাদিক।

আর সেজন্যই তাদের আশা ছিলো যে দুই সাংবাদিকের তৎপরতা জনস্বার্থ হিসেবেই বিবেচিত হবে।

রয়টার্সের প্রধান সম্পাদক স্টিফেন জে এডলার বলেছেন, ‘যখন ওয়া লোন ও কিয়াও সো উ আটক হলো তখন আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ ছিলো তাদের নিরাপত্তা। পরে আইনি পরিস্থিতি বুঝতে পেরে দুই সাংবাদিক ও তাদের স্বজনদের সাথে আলোচনা করে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যে, ইনদিন গ্রামে যা ঘটেছে তা প্রকাশ ছিলো আমাদের দায়িত্ব।’

তিনি বলেন, ‘আমরা অনুসন্ধানী রিপোর্টটি প্রকাশ করেছিলাম। কারণ এটি নিয়ে বিশ্বব্যাপী আগ্রহ ছিলো।’

বিবিসি স্বাধীনভাবে ওই রিপোর্ট যাচাই করে দেখতে পারেনি। কারণ রাখাইনে সাংবাদিকদের কাজ করার সুযোগ খুবই সীমিত।

কিন্তু রয়টার্সের ওই রিপোর্টটি প্রকাশের আগে থেকেই এভাবে গণহত্যার খবর পাওয়া যাচ্ছিলো।

রাখাইন মূলত নতুন করে আলোচনায় আসে গত বছর আগস্টের আগে থেকেই, যখন সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে লাখ লাখ মানুষ রাখাইন ছাড়তে বাধ্য হয়।

পরে রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে আটক করা হয় ১২ই ডিসেম্বর।

কী ছিলো রয়টার্সের প্রতিবেদনে?

উত্তর রাখাইনের ইনদিন গ্রামে সেনাবাহিনী ও কিছু গ্রামবাসী মিলে সারিবদ্ধভাবে একদল রোহিঙ্গাকে বসিয়ে গুলি করে হত্যা করেছিলো।

ঘটনাটি ঘটেছিলো গত বছরের ২ সেপ্টেম্বর।

এ ঘটনাই উঠে এসেছিলো রয়টার্সের প্রতিবেদনে- যার তথ্য-উপাত্ত সব ওই দুই সাংবাদিকই যোগাড় করেছিলেন।

তারা গ্রামবাসী ও নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে কথা বলেন এবং ঘটনার ছবি যোগাড় করেন।

ওই গ্রামের বৌদ্ধদের একটি কবর খননের নির্দেশ দেয়া হয়েছিলো।

এরপর ওই ১০ জনকে হত্যা করা হয় যার মধ্যে অন্তত দুজনকে বৌদ্ধ গ্রামবাসীরা ও বাকীদের সেনা সদস্যরা গুলি করে হত্যা করে।

রয়টার্স দাবি করে, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর হত্যাযজ্ঞের এটিই প্রথম কোনো প্রমাণ।

বৌদ্ধ গ্রামবাসীরাও ঘটনা স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থাটি।

পরে দুই সাংবাদিককে আটকের পর মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ঘটনা তদন্ত করে।

মিয়ানমার দাবি করে, ওই দশ ব্যক্তি ‘বাঙালি সন্ত্রাসী’। কিন্তু রয়টার্স দাবি করে এর কোনো প্রমাণ তারা পায়নি।

ওই দুই সাংবাদিক পরে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীদের সাথেও কথা বলে, যারা এখন বাংলাদেশের শরণার্থী শিবিরে।

Facebook Comments
Please follow and like us: