সাতক্ষীরায় নিজ পুত্রকে হত্যা করে থানায নিখোজের জিডি:লাশ উত্তলণ

ক্যাইমবার্তা রিপোট: কালিগঞ্জ: কালিগঞ্জের চাম্পাফুলে পাষ- পিতা ও সৎ মায়ের লালসার কারণে হত্যাকান্ডের শিকার আরিফুলের (২০) লাশ গর্ত থেকে উত্তোলন করা হয়েছে। শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) বেলা আড়াইটার দিকে পুলিশের উপস্থিতিতে একটি গর্ত থেকে আরিফুলের হাড় ও পরিহিত প্যান্ট উদ্ধার করা হয়। এরআগে আরিফুলের মা খালেদা খাতুন (৩৮) বাদী হয়ে ইমান আলী ও তার তৃতীয় স্ত্রী জহুরা খাতুনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন। শনিবার বিকেলে গ্রেপ্তারকৃতরা বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেছে।

এজাহার ও বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, কাবিখা কর্মসূচিতে কাজ করে আরিফুল তার পিতার কাছে টাকা জমা রাখে। গত ২৪-০৬-২০২০ তারিখে মোবাইল কেনার জন্য জমানো টাকা থেকে ৬ হাজার টাকা পিতা ইমান আলীর কাছে চাইলে তিনি টাকা দিতে অস্বীকার করেন। ২৫-০৬-২০২০ তারিখে রাত সাড়ে ৮টার দিকে টাকা নিয়ে আবারও ইমান আলৗ ও জহুরা খাতুনের সাথে আরিফুলের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে রাত সাড়ে ১১টার দিকে ইমান আলী মোড়ল ও তার তৃতীয় স্ত্রী জহুরা খাতুন আরিফুল ইসলামকে শ^াসরোধে হত্যা করে। লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে ওই রাতে গামছা দিয়ে টেনে ভিটার এক পাশে নিয়ে খেঁজুরপাতা মুড়িয়ে আনুমানিক সাড়ে ৩ ফুট গর্ত করে লাশ পুতে রাখে ইমান আলী। এঘটনা ধামাচাপা দিতে আরিফুল নিখোঁজ হয়েছে প্রচার দিয়ে এলাকার বিভিন্ন স্থানে খুঁজতে থাকে তারা। এমনকি ছেলের নিখোঁজের বিষয়ে গত ২৭-০৮-২০২০ তারিখে কালিগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন ইমান আলী।

প্রতিবেশীদের সন্দেহ হওয়ায় বিভিন্ন সময়ে জিজ্ঞাসাবাদে বিভ্রান্তিমূলক কথাবার্তা বলার এক পর্যায়ে গত ৪ সেপ্টেম্বর দুপুরের পর স্থানীয় ইউপি সদস্য গোলাম কাইয়ুম ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বর রাধারাণী অধিকারীসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিকট জহুরা খাতুন ও ইমান আলী জানায়, তাদের ছেলে আরিফুল প্রায় ৪ মাস আগে আত্মহত্যা করেছিল। পরবর্তীতে তাকে বসতভিটার এক কোনায় কবর দেয়া হয়েছে। ইমান আলী মোড়ল ও জহুরা খাতুনের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ইউপি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক গাইন, ইউপি সদস্য গোলাম কাইয়ুম, সাইলুজ্জামান খান, রাধা রাণী অধিকারী, গ্রামপুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় লাশ গুমের স্থান চিহ্নিত করে কালিগঞ্জ থানায় খবর দেয়া হয়। খবর পেয়ে অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. দেলোয়ার হুসেনের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে যেয়ে ইমান আলী ও জহুরা খাতুনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন।

এঘটনায় আরিফুলের মা (ইমান আলীর তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী) খালেদা খাতুন বাদী হয়ে ইমান আলী মোড়ল ও ছোট বউ জহুরা খাতুনকে আসামি করে কালিগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন (মামলা নং-৬, তারিখ: ০৫/০৯/২০২০ খ্রি.)। শনিবার বেলা আড়াইটার দিকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান ও থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এসএম আজিজুর রহমান উপস্থিত থেকে আরিফুলের লাশ (হাড় ও পরিহিত প্যান্ট) উদ্ধার করেন। সংগৃহীত হাড় ল্যাবে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এসএম আজিজুর রহমান।

এদিকে মামলা দুই আসামি ইমান আলী মোড়ল ও জহুরা খাতুনকে শনিবার বেলা ৩টায় বিজ্ঞ আদালতে হাজির করা হলে তারা ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেছে বলে নিশ্চিত করেছেন থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. দেলোয়ার হুসেন।

Check Also

কলারোয়ায় মাদকা সন্ধেহে আটক ২৬ জনের মধ্যে ১৫ জনের দেহে মাদক পজেটিভ

কলারোয়া প্রতিনিধিঃ  বুধবার ২৩/০৯/২০২০ ইং তারিখ পুলিশ সুপার, সাতক্ষীরা, জনাব মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান পিপিএম (বার) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *