কিলিয়ে কাঁঠাল পাকাতে গেলে হাতই ক্ষতিগ্রস্ত হয়, কাঁঠাল পাকে না: সরকারকে বোঝা উচিত বিশ্ব কি বলছে

দেশের নির্বাচন ব্যবস্থা ও মানবাধিকার আজ প্রশ্নবিদ্ধ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের পক্ষ থেকে ইতোমধ্যেই আমাদের সতর্ক করা হয়েছে। সতর্কবার্তা হিসেবে আসা নিষেধাজ্ঞার পর সরকার একটু হলেও নড়েচড়ে বসেছে। সতর্কবার্তা শাস্তি হিসেবে আসা ঠেকাতে লবিস্ট নিয়োগ করেছে। তাদের বোঝাতে চাচ্ছে অভিযোগ সত্য নয়। দেশে নির্বাচন ব্যবস্থায় কোনো ত্রুটি নেই। মানবাধিকার রক্ষায় তারা আপসহীন। কিন্তু কথায় আছে শুধু মুখের কথায় চিঁড়া ভেজে না, তাতে পানি নিতে হবে। বিষয়টি সরকার উপলব্ধি করলে তবেই আমরা ভালো কিছু আশা করতে পারি। কারণ আমরা জানি, কিলিয়ে কাঁঠাল পাকাতে গেলে হাতই ক্ষতিগ্রস্ত হয়, কাঁঠাল পাকে না। তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে গোটা বিশ্ব একটি গ্রামের মতো। কোনো সরকার নিজ দেশের মিডিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করলেই অপকর্ম গোপন রাখতে পারে না। যারা আমাদের সতর্ক করছেন, তারা আমাদের দেশের মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের ওপর নির্ভর করে সিন্ধান্ত নেন এমনটা ভাবার কারণ নেই। তাদের চোখ কান খোলা।  সেই খোলা চোখে দেখেন, তারপর সেই দেখা বিষয়গুলোর চুলচেরা বিশ্লেষণ করার পরই তারা কোনো সিদ্ধান্ত নেন। তাই তাদের চোখ ফাঁকি দেয়ার চেষ্টা করলে তা বুমেরাং হওয়ার আশঙ্কা শতভাগ।

আমাদের সরকারের বিভিন্ন পর্যায় থেকে আমেরিকা ও ইউরোপের মানবাধিকার  এবং পুলিশি নির্যাতন নিয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে। তারা এমন কথাও বলছেন, ‘সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আরো বেশি মানুষ নিহত হয়।’ তাদের এ দাবি অবশ্যই তথ্যভিত্তিক। কিন্তু প্রশ্ন হলো, সেদেশে যারা নিহত হন, তারা কি রাজনৈতিক মতপার্থক্য কিংবা ভিন্নমত প্রকাশের কারণে নিহত হন, নাকি ফৌজদারি অপরাধ করতে গিয়ে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। তাদের কি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে গ্রেফতারের পর আদালতে হাজির না করে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানের নামে কথিত বন্দুকযুদ্ধের মুখোমুখি করা হয়? আমেরিকার বিগত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পর আমরা দেখেছি, রাজনৈতিক মতপার্থক্য সেখানে সহিংস রূপ নিয়েছিল, সশস্ত্র ব্যক্তিরা ক্যাপিটাল হিলে গিয়ে নিরাপত্তা রক্ষীদের গুলি করেছে। তাদের গুলিতে হত্যার মতো ঘটনাও ঘটেছে। তারপরও হামলাকারীদের হত্যার উদ্দেশ্যে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা গুলি ছোড়েননি। অন্য একটি ঘটনায় সহিংস আন্দোলনকারীদের শান্ত করতে পুলিশ সদস্যরা হাঁটু গেড়ে বসে তাদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেছেন। তার মানে সেখানে রাজনৈতিক কারণে ভিন্নমত প্রকাশ করে সহিংস আচরণ করলেও  পুলিশ ধৈর্যের সাথে মোকাবিলা করে। কারণ সরকার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে অপরাধী হিসেবে গণ্য করে না।
কিন্তু আমাদের দেশে ভোটাধিকার না থাকলেও কারাগারগুলোয় এখন কোনো রাজবন্দী নেই, ভিন্নমত প্রকাশ করার কথিত অপরাধের মামলায় আটক সবাই ফৌজদারি মামলার আসামি। রাজনৈতিক দলের অধিকাংশ অফিস তালাবদ্ধ। বিশেষ করে দেশের তৃতীয় বৃহত্তম রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় ও মহানগরী অফিস খুলে যারাই বসতে চান, তাদের নাশকতার গায়েবি মামলার আসামি অভিযুক্ত করে গ্রেফতার করা হয়। গায়েবি মামলার নথিতে নাম থাকার দরকার নেই, গং হাজার জনের একজন বিবেচনা করা হয়। জামিনে থাকলে নতুন নতুন মামলা সৃষ্টি করতে কালবিলম্ব হয় না। একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় রাজনৈতিক দলের নেতারা সম্মানীত নাগরিক হিসেবে বিবেচিত হবেনÑ এটাই রীতি। কিন্তু এদেশে বিরোধী দলের নেতা-কর্মী মানেই অপরাধী, আসামি। যদিও তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সত্তরোর্ধ্ব বয়সী মহিলা অধ্যাপক, কোনো জাতীয় দৈনিকের সম্পাদক, প্রধান প্রতিবেদক কিংবা বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সর্বোচ্চ পদে নেতৃত্বদানকারী কোনো সর্বজনশ্রদ্ধেয় নেতা, তাতে কিছু এসে-যায় না। শাস্তি তাকে পেতেই হবে, যেহেতু তিনি ক্ষমতার পরিবর্তন চান, জনগণের ভোটাধিকারের কথা বলেন, মানবাধিকার রক্ষার দাবিতে সোচ্চার। এই যদি হয় দেশের অবস্থা, শুধু লবিস্ট নিয়োগ এবং গুম হওয়ার ব্যক্তিদের স্বজনদের চাপ দিয়ে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নিলেই কি মিত্ররা আমাদের বিশ্বাস করবেন? আমরা মনে করি, অবশ্যই তা করবেন না। ঐ যে আগেই বলেছি, তারা অন্য কারো কান দিয়ে কিংবা চোখ দিয়ে সত্য তালাশ করেন না।
তাই আমরা মনে করি, দেশ ও জাতির ওপর নিষেধাজ্ঞা নামের আরো বড় কোনো বিপদ আসার আগে সরকারের উচিত সকল রাজনৈতিক মামলা বাতিল, রাজনৈতিক দলের অফিসগুলো খুলে দিয়ে একটি বিশ্বাসযোগ্য গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনা। তা না হলে আগামী ২০২৩ সালের নির্বাচন সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ অবাধ হবে না, ফলাফলে জনগণের মতামতের প্রতিফলন ঘটবে না। ফলে আজকের এই সতর্ক সংকেত ভবিষ্যতে শাস্তি হিসেবে আসার আশঙ্কা বহুগুণ বেড়ে যাবে, যা আমাদের কারো কাম্য নয়।

Please follow and like us:

Check Also

ঢাবি ছাত্রীদের পেটাচ্ছেন কুয়াকাটার ছাত্রলীগকর্মী!

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর গতকাল হামলা চালায় ছাত্রলীগ। এর মধ্যে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

***২০১৩-২০২৩*** © ক্রাইমবার্তা ডট কম সকল অধিকার সংরক্ষিত।