বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের জিম্মী করে ভারতীয় ব্যবসায়ীদের চাঁদাবাজি: প্রতিবাদে মানববন্ধন

সাতক্ষীরা সংবাদদাতা: সাতক্ষীরার ভোমরা সিএন্ডএফ এজেন্টস্ এসোসিয়েশনের প্রতিবাদে লাগাতার কর্মসূচি ভোমরা স্থলবন্দরের বিপরীতে ভারতের ঘোজাডাঙ্গা কাস্টমস্ শুল্ক স্টেশনের পার্শ্ববর্তী বেসরকারী পার্কিংগুলোতে সিরিয়ালের নামে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। এতে করে বাংলাদেশী আমদানিকারকরা আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়ছেন। এমনকি আমদানিজাত পণ্যের মূল্য ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার ফলে দেশের অন্যান্য বন্দরের তুলনায় ভোমরা বন্দরে আমদানি ব্যয় বৃদ্ধি পাওয়ায় আমদানিকারকরা এ বন্দর ত্যাগ করতে শুরু করছেন। বিষয়টি ভারতের ঘোজাডাঙ্গা সিএন্ডএফ এজেন্ট (ই) কার্গো ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনকে লিখিত ও মৌখিকভাবে অবহিত করা হলেও তাদের পক্ষ থেকে সিরিয়ালের নামে চাঁদাবাজি বন্ধের কোন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। প্রসঙ্গত, আমদানিজাত পণ্যের প্রকারভেদে ট্রাক প্রতি ২৫ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা সিরিয়ালের নামে চাঁদাবাজি করা হচ্ছে। তা নাহলে আমদানিজাত পণ্যবাহী ট্রাকগুলোকে ঘোজাডাঙ্গা বেসরকারি পার্কিং ইয়ার্ডে ৩০ দিন থেকে ৪৫ দিন পর্যন্ত আটকে রাখা হচ্ছে। আর চাঁদা দিলে দিনের দিন অথবা একদিন পর উঠেল্লখিত পণ্যবাহী ট্রাকগুলো বাংলাদেশে প্রবেশের অনুমতি পাচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে সাতক্ষীরা ভোমরা স্থলবন্দরের আমদানিকারকগণ, সিএন্ডএফ কর্মচারী এসোসিয়েশন, শ্রমিক ইউনিয়নসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিদের সাথে ভোমরা সিএন্ডএফ এজেন্টস্ এসোসিয়েশনের আহ্বায়ক কমিটির উদ্যোগে যৌথ সভা অনুষ্ঠিত হয় গতকাল। বিভিন্ন সংগঠনের মতামতের ভিত্তিতে ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষার লক্ষ্যে সিরিয়ালের নামে চাঁদাবাজি বন্ধের জন্য বাস্তবমুখী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। সিদ্ধান্ত সমূহ হচ্ছে, আগামী ২৫ জানুয়ারি মঙ্গলবার ও ২৭ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার স্থানীয় ও সাতক্ষীরার বিভিন্ন সংগঠনের সাথে মতবিনিময় ও প্রচারণামূলক কর্মসূচি, ২৯ জানুয়ারি শনিবার সকাল ১০টা হতে বেলা ১২টা পর্যন্ত ২ ঘন্টা, ৩০ জানুয়ারি রোববার সকাল ১০টা হতে বেলা ১টা পর্যন্ত ৩ ঘন্টা এবং ৩১ জানুয়ারি সকাল ১০টা হতে বেলা ২টা পর্যন্ত কর্মবিরতি ও মানববন্ধন এবং ১ ফেব্রুয়ারি থেকে লাগাতার কর্মবিরতি। এসোসিয়েশনের আহবায়ক শেখ এজাজ আহমেদ স্বপন স্বাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এই কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

Check Also

আলেম-ওলামাদের বিরুদ্ধে অবস্থান মূলত ইসলাম ও দেশের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া : ড. মাসুদ

ষিতে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান এবং পরে বেগম খালেদা জিয়া ছাড়া অন্য কেউ ভূমিকা রাখেননি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

***২০১৩-২০২১*** © ক্রাইমবার্তা ডট কম সকল অধিকার সংরক্ষিত।