বিজয় র‍্যালির মাধ্যমে জেগে উঠবে মানুষ: মির্জা ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, একাত্তরে আমরা গণতন্ত্রের জন্য স্বাধীনতা যুদ্ধ করেছিলাম। অথচ ক্ষমতাসীনরা আমাদের ভোটাধিকার ও বলার-লেখার এবং গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নিয়েছে। রোববার বিকেলে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিজয় র‌্যালির উদ্বোধনী বক্তব্যে বিএনপির মহাসচিব এসব কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও দেশ রক্ষার জন্য বহুদলীয় গণতন্ত্রের যে সূচনা করেছিলেন সেসবই ধ্বংস করেছে এই সরকার। এই র‌্যালি দেশের মানুষের নতুনভাবে জেগে ওঠবার র‌্যালি। বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি ও বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনার প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ৭১ এর প্রথম মুক্তিযোদ্ধা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া এই সরকারের মিথ্যা মামলায় কারাগারে আটক অবস্থায় জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে হাসপাতালে। আমরা এমন একটি সময় এই বিজয় র‌্যালি করছি। তাই এই র‌্যালি আমাদের কাছে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ।

তিনি বলেন, আমরা স্বাধীনতা যুদ্ধের মাধ্যমে যে রাষ্ট্র অর্জন করেছিলাম তার লক্ষ্য ছিল আমরা একটি নিরাপদ রাষ্ট্র পাবো। আমরা কথা বলার অধিকার পাবো, রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের অধিকার পাবো। কিন্তু এই সরকার একটি বাকশালী রাষ্ট্র কায়েমের লক্ষ্যে এদেশের জনগণকে জিম্মি করে ক্ষমতায় চেপে বসে আছে। মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকার আমাদের সকল অধিকার গুলোকে ধ্বংস করে দিয়েছে। রাষ্ট্রের সকল প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করে দিয়ে মানুষের সকল অধিকার গুলোকে কেড়ে নিয়েছে।
র‌্যালি শুরুর আগে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে নয়া পল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হতে থাকে। দুপুর দেড়টার মধ্যেই বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে একদিকে নাইটেঙ্গেল মোড় অন্যদিকে ফকিলাপুল মোড় পর্যন্ত বিএনপি নেতাকর্মী দিয়ে ভরে যায়। বিএনপির বিজয় র‌্যালিতে আসা নেতাকর্মীরা ‘স্বাধীনতার অপর নাম, জিয়াউর রহমান’, ‘স্বাধীনতার ঘোষক জিয়া, লও লও লও সলাম’, ‘মুক্তি মুক্তি চাই, খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই’- স্লোগানে পুরো নয়া পল্টন ও এর আশেপাশের এলাকা প্রকম্পিত করে তুলে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, আমির খসরু মাহমুদ টুকু, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, আহমেদ আযম খান, মহানগর উত্তরের সভাপতি আমানউল্লাহ আমান, দক্ষিণের সভাপতি আব্দুস সালাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Please follow and like us:

Check Also

জলোচ্ছ্বাসে প্লবিত বিস্তীর্ণ অঞ্চল , নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রের অভাবে গত ৫০ বছরে উপকূলে ৪ লাখ ৭৫ হাজার প্রাণহানি

হুহু করে লোকালয় ঢুকছে সাগরের পানি আবু সাইদ বিশ্বাস, সাতক্ষীরাঃ প্রবল ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে তীব্র …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

***২০১৩-২০২৩*** © ক্রাইমবার্তা ডট কম সকল অধিকার সংরক্ষিত।