বিষ দিয়ে মাছ শিকারে সুন্দরবনের মৎস্যভান্ডার ফুরিয়ে আসছে (৭)

আবু সাইদ বিশ্বাস, সাতক্ষীরাঃ বিষাক্ত কীটনাশক মিশিয়ে মাছ শিকারের ফলে সুন্দরবনের মৎস্যভান্ডার নদী-খাল ক্রমশ্যই মাছশূন্য হয়ে পড়ছে । জোয়ারের আগে কীটনাশক চিড়া, ভাত বা অন্য কিছুর সঙ্গে মিশিয়ে নদী ও খালের পানির মধ্যে ছিটিয়ে দেয়া হচ্ছে। কিছুক্ষণের মধ্যেই বিভিন্ন প্রজাতির মাছ কীটনাশকের তীব্রতায় নিস্তেজ হয়ে পানিতে ভেসে উঠছে। বিষ প্রয়োগে মাছ শিকারের ফলে পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। বিষাক্ত মাছ খাওয়ার ফলে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্যকে হুমকির মুখে ফেলেছে। এতে শয়ে শয়ে মাছের প্রজাতি ধ্বংসের পাশাপাশি মৎস্য প্রজনন চরমভাবে বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। অসাধু বনরক্ষীদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদে নির্বিচারে চলছে মৎস্য নিধনের অনৈতিক এ কারবার বলে অভিযোগ রয়েছে। অন্যদিকে স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ছে উপকূলীয় অঞ্চলের বাসিন্দাদের। এই অবস্থায় জীববৈচিত্র্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ সুরক্ষায় দ্রæত কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান বন সংশ্লিষ্টরা।
বন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, প্রায় ৬ হাজার ১৭ বর্গকিলোমিটার আয়তনের সুন্দরবনের জলভাগের পরিমাণ ১ হাজার ৮৭৪ বর্গকিলোমিটারের বেশি, যা সমদ্র সুন্দরবনের ৩১ দশমিক ১৫ ভাগ। এই জলভাগে জালের মতো ছড়িয়ে রয়েছে ১৩টি বড় নদনদীসহ ৪৫০টির মতো খাল। জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হওয়া এই বনের নদনদী ও খালে ভেটকি, রূপচাঁদা, দাঁতিনা, চিত্রা, পাঙাশ, লইট্যা, ছুরি, মেদ, পাইস্যা, পোয়া, তপসে, লাক্ষা, কই, মাগুর, কাইন, ইলিশসহ ২১০ প্রজাতির সাদা মাছ হয়ে থাকে। এছাড়া রয়েছে গলদা, বাগদা, চাকা, চালী, চামীসহ ২৪ প্রজাতির চিংড়ি। বিশ্বখ্যাত শিলা কাঁকড়াসহ ১৪ প্রজাতির কাঁকড়ার প্রজনন হয়ে থাকে এই বনের নদনদী ও খালে। রয়েছে ৪৩ প্রজাতির মালাস্কা ও এক প্রজাতির লবস্টার। আরো রয়েছে বিলুপ্ত প্রায় প্রজাতির ইরাবতীসহ ছয় প্রজাতির ডলফিন।
স্থানীয়দের অভিযোগ, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ব্যক্তি, জেলে নামধারী মৎস্য দুর্বৃত্তরা কিছু মৎস্য আড়তদার, দাদনদাতা, কীটনাশক বিক্রেতা ও স্থানীয় কিছু নেতা জেলেদের মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে এ কাজে সহায়তা করেন। এমনকি সংবাদকর্মীদের ছত্রছায়ায় অসাদু জেলেরা সুন্দরবনে প্রবেশ করে। তাদের সঙ্গে আছে এক শ্রেণির কীটনাশকবিক্রেতা। চক্রের লোকজন ওই বিক্রেতাদের কাছ থেকে অবাধে কীটনাশক সংগ্রহ করে তা মাছ ধরার কাজে অপব্যবহার করছে। আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে বনবিভাগের কিছু অসাদু বনরক্ষী ও কর্মকর্তা উৎকোচের বিনিময়ে এসব দেখেও না দেখার ভান করেন। ফসলের পোকা দমনে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের কীটনাশক দিয়ে এসব মাছ শিকার করা হয়। অভিযোগ রয়েছে, এক শ্রেণির অসাদু বনরক্ষীদের নিয়মিত মাসোহারা দিয়ে জেলেরা বিষ প্রয়োগ করে মাছ শিকার করছেন। এজন্য ট্রলার প্রতি ১০ হাজার এবং নৌকা প্রতি ৫ হাজার টাকা গুনতে হয় তাদের। বন কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে তারা অভয়ারণ্যের খালে বিষ দিয়ে অল্প সময়ে অধিক মাছ শিকার করে থাকেন। এছাড়া জেলেদের শিকার করা মাছ নিরাপদে লোকালয়ে পৌঁছাতেও টাকা দিতে হয় স্থানীয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের। মাঝে মধ্যে ২/১ জন ধরা পড়লেও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়ায় অপরাধচক্রটি দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিষ দিলে মাছের সঙ্গে সব প্রজাতির জলজ প্রাণীই মারা যায়। এটা জীববৈচিত্র্যের জন্য খুবই মারাত্মক। পরিবেশের ওপর যেমন বিরূপ প্রভাব পড়ে অন্যদিকে বিষে মরা ওই মাছ খেয়ে মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে মানুষসহ অন্যান্য প্রাণী। তারা বলছেন, সুন্দরবনের জলজ পাখির প্রধান খাবার নদী ও খালের ছোট মাছ। কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে সুন্দরবনের নদী-খাল থেকে মাছ শিকার করতে ব্যবহার করা হচ্ছে কীটনাশক ও বিষ। এই বিষে মাছের পাশাপাশি খালের পানিতে থাকা বিভিন্ন পোকা-মাকড়ও বিষাক্ত হয়ে পড়েছে। বিষাক্ত এসব প্রাণী খাবার হিসেবে গ্রহণ করে পাখি। ফলে বিষক্রিয়ায় অনেক প্রজাতির পাখিও মারা যাচ্ছে। বেসরকারি সংস্থা ‘সেভ দ্য সুন্দরবন’র চেয়ারম্যান শেখ ফরিদুল ইসলাম বলেন, ‘কীটনাশক দিয়ে মাছ ধরায় শুধু সুন্দরবনের মৎস্যসম্পদ ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে না, এই বিষাক্ত পানি পান করে অন্য বন্যপ্রাণীরাও মারাত্মক হুমকির মধ্যে রয়েছে। উপকূলীয় এলাকায় মানুষের পানীয় জলের উৎসগুলো বিষাক্ত হয়ে পড়ছে। সরকারের এ বিষয়ে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি।’
সাতক্ষীরা রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক ইকবাল হোসাইন চৌধুরী জানান, সুন্দরবনে প্রবেশে আগস্টের শেষ সপ্তাহ পর্যন্তনিষেধাজ্ঞা থাকলেও আটকেরা চুরি করে বনে ঢুকেছিল। এ সময় তারা বিষ দিয়ে মাছ ও কাঁকড়া শিকারের পাশাপাশি হরিণ শিকারের চেষ্টা করছিল। পশ্চিম সুন্দরবনের কোবাদক ও কদমতলা স্টেশনের সদস্যরা তাঁদের আটকের পর বন আইনের মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠায়। পশ্চিম সুন্দরবনের কাশিয়াবাদ স্টেশন কর্মকর্তা শ্যামা প্রসাদ রায় বলেন, সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকার মহাজন নামধারি কতিপয় ব্যক্তি প্রতি বছর নিষিদ্ধ সময়ে বনের খালে মাছ শিকারের চেষ্টা করেন। এলাকার জেলেদের দাদনের ফাঁদে ফেলে বিষ দিয়ে মাছ শিকারে উৎসাহিত করেন তারা। আবার কেউ কেউ জেলেদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিয়ে সংরক্ষিত বনের খালে বিষ দিয়ে মাছ শিকার ও পাচারে সুযোগ করে দেন। তারা বনরক্ষীদের টহলের গতিবিধি লক্ষ্য করে জেলেদের সতর্ক করে থাকেন। বিষ দিয়ে মাছ শিকার নির্মূলে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
বনবিভাগ সূত্র জানায় সুন্দরবনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা ১ জুন থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত তিন মাসে খুলনা ও সাতক্ষীরা রেঞ্জে অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে গেল দুই মাসে ১১৬টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ সময় ১২৪ জেলেকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে ২৭ টি পিওআর মামলা, ৩৪টি ইউডিওআর মামলা ও ০১টি সিওআর মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়া একটি ইঞ্জিন চালিত ট্রলার, ৬৩টি নৌকা, ৪টি মোটরসাইকেল, ১৬ কেজি হরিণের মাংস, ৬৩৯ কেজি চিংড়ি সাদা মাছ, ৩৫ কেজি শুঁটকি চিংড়ি ১৯০ কেজি, কাঁকড়া, ৬০০টি হরিণ ধরা ফাঁদ ও ১৪টি বিষের বোতল জব্দ করা হয়। সুন্দরবনের সাতক্ষীরা রেঞ্জ থেকে গত ২ মাসে ৮টি ইঞ্জিনচালিত ট্রলার, ১৩০টি নৌকা এবং অবৈধ কাঁকড়া পরিবহনকালে একটি পিকআপ ভ্যান জব্দ করা হছে। এ সময় ১০১ জনকে আটক করা হয়েছে। ৭টি পিওআর মামলা, ৩১ টি ইউডিওআর মামলা এবং ১৬ টি সিওআর মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসবের পাশাপাশি উদ্ধার করা হয়েছে অবৈধ ভেসালি জাল, নিষিদ্ধ কীটনাশক, শুটকি চিংড়িসহ অন্যান্য সরঞ্জাম। বিভাগীয় পর্যায়ে মামলা নিষ্পত্তির মাধ্যমে ২৩ লাখ ৩৬ হাজার টাকা রাজস্ব আদায় করা হয়েছে।
পশ্চিম সুন্দবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) ড. মোঃ আবু নাসের মোহসিন বলেন, সুন্দরবনে অসাধু মাছ ব্যবসায়ী ও জেলে বিষ দিয়ে মাছ শিকারের সঙ্গে সম্পৃক্ত। প্রায় সময়েই অভিযান চালিয়ে এদের গ্রেফতার করা হয়। কিন্তু তারা দ্রæত আদালত থেকে জামিনে এসে আবার একই কাজ করেন। গ্রেফতারের পর কেন দ্রæত জামিনের বেরিয়ে আসে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিষ দিয়ে শিকার করা মাছ শনাক্ত করার মেশিন আমাদের কাছে নেই। তাই এ বিষয়ে প্রমাণ আদালতে উপস্থান করা যায় না।’
সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ শিকার প্রসঙ্গে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার বলেন, সুন্দরবনের সব খালের মাথায় একজন করে লোক দাঁড় করে রাখার মতো জনবল তো আমাদের নেই। জনগণ নিজেরাই সুন্দরবনের সম্পদ নষ্ট করলে আমরা কি করে রক্ষা করব। তিনি এলন সুন্দরবন এলাকায় অনেক খাল রয়েছে। একটা খালকে পাহাড়া দেওয়া যায়। শত শত খাল কে পাহাড়া দেবে? মানুষ যদি নিজেরা ঠিক না হয়। রাজহাঁস সোনার ডিম পারবে ওরা সেই রাজহাঁসটাকেই মেরে খেয়ে নিতে চায়। তাহলে খাক তারা। আমি কি করব? এত বুঝালেও বোঝে না। শুধু সাতক্ষীরায় নয় সারা সুন্দরবনে সব জায়গায় বিষ দিয়ে মাছ শিকারের সমস্যা রয়েছে। আবু সাইদ বিশ^াস। সাতক্ষীরা, ৮.৯.২৩

Please follow and like us:

Check Also

বাজেটে উপকূল রক্ষায় পর্যাপ্ত বরাদ্দ না থাকায় বহুমাত্রিক সংকটে পড়ছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অধিকাংশ মানুষ

আবু সাইদ বিশ্বাস, সাতক্ষীরাঃ জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবে দেশের সমুদ্র উপকূলীয় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অধিকাংশ মানুষ বহুমাত্রিক সংকটে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

***২০১৩-২০২৩*** © ক্রাইমবার্তা ডট কম সকল অধিকার সংরক্ষিত।