রবিবার , ৫ জুলাই ২০২০

ঈদে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ফোর লেনের কাজ বন্ধ থাকবে —- সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

ক্রাইমবার্তা রিপোট:গাজীপুর সংবাদদাতা,  ঃ সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এবারের ঈদযাত্রায় মানুষের ভোগান্তি কমাতে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চলমান চার লেনের কাজ সাময়িকভাবে এখন বন্ধ থাকবে। চলমান ফোর লেনের কাজ এখন বন্ধ থাকবে। পাশাপাশি গার্মেন্টস পণ্যবাহী গাড়ি, ঔষধ, পচনশীল খাদ্যদ্রব্য ছাড়া কোনো ভারী গাড়ি ঈদের তিন দিন রাস্তায় চলতে পারবে না। পোশাক শ্রমিকদের ঈদের ছুটি একই সময়ে না দিয়ে ভাগ ভাগ করে ছুটির ব্যবস্থা করার জন্য পোশাক কারখানার মালিকদের প্রতি অনুরোধ করছি। জনস্বার্থে যা যা করা দরকার সবই করা হবে। আমরা আশা করছি জনস্বার্থে-জাতীয়স্বার্থে এটা সবাই মেনে নেবেন।13

ভারি বর্ষণে ক্ষতিগ্রস্ত ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের তারগাছ এলাকায় সংস্কার কাজ মঙ্গলবার পরিদর্শনে এসে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, মানুষের ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক করার জন্য আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমি প্রতিদিনই রাস্তায় আছি, রাস্তায় থাকব। প্রয়োজনে ঈদের দিনও থাকব, যাতে জনগণকে যতটা সম্ভব স্বস্তি দেওয়া যায়, তাদের দুর্ভোগ কমানো যায়। আমি স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ও জনপ্রতিনিধি সবাইকে এ সময় রাস্তার দিকে মনোযোগ দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। যাতে আমরা জনগণের ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক করতে পারি।

তিনি আরো বলেন, ভারি বর্ষণে পাহাড়ে যে সংকট হয়েছে বা অন্যান্য জায়গায় সংকট হতে পারে, বিপদ আসতে পারে, সে জন্য আমি সংশ্লিষ্ট সকলকে এবং আমাদের দলের নেতা-কর্মীদেরকে জনগণের পাশে দাঁড়ানোর অনুরোধ করছি, নির্দেশ দিচ্ছি। যাত্রীরা যাতে রাস্তায় বিপদে না পড়েন, অসহায়বোধ না করেন, সে জন্য স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব পালন করার জন্য সকল সড়ক-মহাসড়কে পুলিশকে সহযোগিতা করার জন্য তরুণ নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

মন্ত্রী বাস মালিকদের উদ্দেশে বলেন, ফিটনেস বিহীন গাড়ি রাস্তায় বন্ধ হয়ে যায়। দূর্ঘটনা ঘটে। রাস্তায় গাড়ি বন্ধ হলে লম্বা টেইল বের হয়। তাই জনগণ ও দেশের স্বার্থে ফিটনেস বিহীন গাড়ি রাস্তায় নামানো থেকে বিরত থাকার জন্য আমি বাস মালিকদের অনুরোধ করছি। পাশাপাশি পোশাক শ্রমিকদের ঈদের ছুটি একই সময়ে না দিয়ে ভাগ ভাগ করে ছুটির ব্যবস্থা করার জন্য পোশাক কারখানার মালিকদের প্রতি অনুরোধ করছি।

তিনি বলেন, আমাদের মূল সমস্যা হচ্ছে মহাসড়কে বেপরোয়া মনোভাব, বেপরোয়া ড্রাইভিং। আমি অবাক হয়ে দেখি আট লেনের রাস্তায় মধ্যরাতেও যানজট হচ্ছে। যানজট রোধে চালকদের ও মালিকদের এই মানসিকতার পরিবর্তন করে ধৈর্য্য ধরতে হবে।

মন্ত্রী আরো বলেন, ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক করতে সর্বাত্মক চেষ্টা করা হচ্ছে। এ সময় জনগণকে যদি স্বস্তি দিতে না পারি, তাহলে এটা অত্যন্ত কষ্টের ব্যাপার হবে। এটা হবে আমাদের জন্য একটা নেতিবাচক দিক। এজন্য আমি প্রতিদিনই রাস্তায় আছি, রাস্তায় থাকব। প্রয়োজনে ঈদের দিনও থাকব। পাশাপাশি জনপ্রতিনিধি ও নেতাকর্মীদের এ দিকে মনোযোগ দিতে হবে। ঘরমুখো মানুষ যাতে রাস্তায় বিপদে না পড়ে, অসহায়বোধ না করে, সে জন্য সড়ক-মহাসড়কে পুলিশকে সহযোগিতা করতে তরুণ নেতা-কর্মীদের ভলান্টিয়ারের দায়িত্ব পালন করার আহ্বান জানান তিনি।

এ সময় সড়ক ও জনপথের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আব্দুস সবুর, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খান, গাজীপুর সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী ডিএন নাহিন রেজাসহ সওজের কর্মকর্তারা এবং গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম উপস্থিত ছিলেন।

About ক্রাইমবার্তা ডটকম

Check Also

সাতক্ষীরায় সবজি বাজারে আগুন ॥ বেকায়দায় ক্রেতা সাধারণ

ক্রাইমর্বাতা রিপোট:   সবজি বাজারের উত্তাপ দিনে দিনে বেড়েই চলেছে। বলা যায় বাজার ব্যবস্থা অস্থিতিশীলতার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *