তালা ও কলারোয়ায় ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্ধ

আসন্ন কলারোয়া উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাইবাছাই সম্পন্ন  শেষে আজ প্রতীক বরাদ্ধ হয়েছে। বিস্তারিত আসছে—

এর আগে শুক্রবার (১৯ মার্চ) চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বর ও সাধারণ ওয়ার্ডের মেম্বর পদের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাইবাছাই সম্পন্ন হয়। এতে চেয়ারম্যান প্রার্থী জালালাবাদ ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ মনোনীত আমজাদ হোসেন ও সোনাবাড়িয়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুর রহিমের মনোনয়নপত্র ব্যাংকে ঋণ খেলাপির কারণে সাময়িক বাতিল হয়েছে।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কলারোয়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার মনোরঞ্জন বিশ্বাস।
উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০টি ইউনিয়নে আগামি ১১ এপ্রিল ভোটগ্রহণ হবে। তবে মনোনয়ন বাতিল হওয়া জালালাবাদের নৌকার প্রার্থী আমজাদ হোসেন জানান, ‘তিনি পূর্বেই ঋণের টাকা পরিশোধ করেছেন, আপিলে বিষয়টির কাগজপত্র দাখিল করা হবে।’ উপজেলা নির্বাচন অফিসার মনোরঞ্জন বিশ্বাস জানান, ‘মনোনয়নপত্র যাচাইবাছাই শেষে ১০টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র দাখিলকৃত ৫১জন প্রার্থীর মধ্যে বৈধ প্রার্থী ৪৯জন, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ১২৪জন ও সাধারণ ওয়ার্ডের সদস্য পদে ৪০৫জন প্রার্থী থাকলো। তবে বাতিল দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী আপিলের সুযোগ পাবেন।’
তিনি আরো জানান, ‘১নং জয়নগর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫জন তারা হলেন- আওয়ামীলীগ মনোনীত শামছুদ্দীন আল মাসুদ, স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিদ্দিকুর রহমান, জয়দেব কুমার সাহা, বিশাখা সাহা ও আব্দুল আজিজ, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ১৫জন, সাধারণ সদস্য পদে ৪১জন, ২নং জালালাবাদ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪জন তারা হলেন-স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহাফুজুর রহমান, শওকত আলী, শরিফুর রহমান ও আবুল কালাম আজাদ, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ১৪জন, সাধারণ সদস্য পদে ৪৪জন, ৩নং কয়লা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৬জন তারা হলেন- আওয়ামীলীগের আসাদুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো.রফিক, শেখ সোহেল রানা, শেখ ইমরান হোসেন, জিএম জাহাঙ্গীর হোসেন ও বাবু আহম্মেদ, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ১০জন, সাধারণ সদস্য পদে ৩৩জন, ৪নং লাঙ্গলাঝাড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ২জন, তারা হলেন- আওয়ামীলীগের আবুল কালাম ও স্বতন্ত্র নুরুল ইসলাম, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ১২জন, সাধারণ সদস্য পদে ২৯জন, ৫নং কেঁড়াগাছি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪জন, তারা হলেন- আওয়ামীলীগের ভূট্টোলাল গাইন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মারুফ হোসেন, মফিজুল ইসলাম ও এসএম আফজাল হোসেন, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ১০জন, সাধারণ সদস্য পদে ৩৮জন, ৬নং সোনাবাড়িয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫জন, তারা হলেন- আওয়ামীলীগের বেনজির হোসেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম শহিদুল, মো.আকবর, মনিরুল ইসলাম ও আলমগীর আজাদ, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ১২জন, সাধারণ সদস্য পদে ৪৯জন, ৭নং চন্দনপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫জন তারা হলেন- আওয়ামীলীগের মনিরুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী রমজান আলী, আব্দুল লতিফ, ডালিম হোসেন ও নুরুল ইসলাম, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ৯জন, সাধারণ সদস্য পদে ৪৭জন, ৯নং হেলাতলা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৭জন, তারা হলেন-আওয়ামী লীগের আনছার আলী সরদার, স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু তালেব সরদার, মুনছুর আলী, মাজেদ বিশ্বাস, আবু জাফর, ইকবাল হোসেন ও মোয়াজ্জেম হোসেন, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ১৮জন, সাধারণ সদস্য পদে ৩৯জন, ১১নং দেয়াড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৬জন, তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মাহবুবুর রহমান, স্বতন্ত্র প্রার্থী ইব্রাহিম হোসেন, মিনাজ উদ্দিন, আবু বককার সিদ্দীক, নাজমা পারভীন ও আব্দুল মান্নান, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ১২জন, সাধারণ সদস্য পদে ৪৭জন, ১২নং যুগিখালী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫জন, তারা হলেন-আওয়ামী লীগের রবিউল হাসান, স্বতন্ত্র প্রার্থী এরশাদ আলী, আবুল বাশার, ওজিয়ার রহমান ও মনিরুজ্জামান, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য পদে ১২জন, সাধারণ সদস্য পদে ৩৮জন।’
এদিকে, বিভিন্ন ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের অনেকেই তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে পারেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।
নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ‘আগামি ২৪ মার্চ পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। ২৫ মার্চ প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে, সেদিন থেকেই বিধি অনুযায়ী আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচারণায় নামতে পারবেন চূড়ান্ত প্রার্থীরা।’
আসন্ন ১০টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৫জন সরকারি কর্মকর্তাকে ২টি করে ইউনিয়নের রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তারা হলেন- ১নং জয়নগর ও ২নং জালালাবাদ ইউনিয়নে উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো. নুরে আলম, ৩নং কয়লা ও ৯নং হেলাতলা ইউনিয়নে উপজেলা নির্বাচন অফিসার মনোরঞ্জন বিশ্বাস, ৪নং লাঙ্গলঝাড়া ও ৫নং কেঁড়াগাছি ইউনিয়নে উপজেলা কৃষি অফিসার মো. রফিকুল ইসলাম, ৬নং সোনাবাড়িয়া ও ৭নং চন্দনপুর ইউনিয়নে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আবদুল হামিদ এবং ১১নং দেয়াড়া ও ১২নং যুগিখালী ইউনিয়নে উপজেলা পল্লী উন্নয়ন অফিসার এসএমএ সোহেল।
উপজেলা নির্বাচন অফিসার মনোরঞ্জন বিশ্বাস জানান, ‘আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোটার রয়েছে ১নং জয়নগর ইউনিয়নে ১২৭৫৫জন, এর মধ্যে পুরুষ ৬৩৪৯ ও মহিলা ৬৪০৬, ২নং জালালাবাদ ইউনিয়নে ১৫৬১২জন, এর মধ্যে পুরুষ ৭৮৮০ ও মহিলা ৭৭৩২, ৩নং কয়লা ইউনিয়নে ৭৫৭৪জন, এর মধ্যে পুরুষ ৩৭৬১ ও মহিলা ৩৮১৩, ৪নং লাঙ্গলঝাড়া ইউনিয়নে ৯৬২৭জন, এর মধ্যে পুরুষ ৪৭৪১ ও মহিলা ৪৮৮৬, ৫নং কেঁড়াগাছি ইউনিয়নে ১৯২২৪জন, এর মধ্যে পুরুষ ৯৬৬২ ও মহিলা ৯৫৬২, ৭নং চন্দনপুর ইউনিয়নে ২২২০৫জন, এর মধ্যে পুরুষ ১১১৬৭ ও মহিলা ১১০৩৮, ৯নং হেলাতলা ইউনিয়নে ১৮১৫১জন, এর মধ্যে পুরুষ ৯০৯৮ ও মহিলা ৯০৫৩, ১১নং দেয়াড়া ইউনিয়নে ১৭৯৮৭জন, এর মধ্যে পুরুষ ৯০৪৮ ও মহিলা ৮৯৩৯ এবং ১২নং যুগিখালী ইউনিয়নে ১৩৪৪৬জন, এর মধ্যে পুরুষ ৬৭৬৯ ও মহিলা ৬৬৭৭জন।’
এদিকে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মনোনয়নপত্র দাখিলকৃত স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অধিকাংশই আওয়ামীলীগ, বিএনপি ও জামায়াত ঘরণার নেতা রয়েছেন। তাদের মধ্যে গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি’র মনোনয়নে ধানেরশীষ প্রতীক পাওয়া প্রার্থীও রয়েছেন। এবারের নির্বাচনে কেন্দ্রীয় বিএনপি অংশ গ্রহন না করার সিদ্ধান্ত জানালেও গত ইউপি নির্বাচনে ধানেরশীষ প্রতীক পাওয়া সোনাবাড়িয়া ইউনিয়নের এসএম শহিদুল, হেলাতলার মুনছুর আলী ও দেয়াড়ার ইব্রাহিম হোসেন এবারের আসন্ন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এর বাইরেও কয়েকটি ইউনিয়নে বিএনপি’র স্থানীয় কয়েকজন নেতা প্রার্থী তালিকায় নাম লিখিয়েছেন। অন্যদিকে সরাসরি জামায়াত ঘরণার নেতা জালালাবাদের শওকত আলী, চন্দনপুরের রমজান আলী ও হেলাতলার আবু তালেব সরদার রয়েছেন। আবার এসবগুলো ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে বেশিরভাগ স্বতন্ত্র প্রার্থীই সরাসরি আওয়ামী লীগের স্থানীয় ও উপজেলা পর্যায়ের নেতাও রয়েছেন।
‘নিজের ভোট নিজে দিতে পারবেন’-এমন প্রত্যাশার কথা জানিয়ে সাধারণ ভোটাররা বলছেন, ‘যোগ্য প্রার্থীকেই তারা ভোট দিতে চান। নির্বাচন মূলত সকল ধর্ম-বর্ণ-গোষ্ঠির তথা সার্বজনীন আনন্দ উৎসব। সেই উৎসব যেনো অটুট থাকে। হার-জিত যেটাই হোক, সংশ্লিষ্ট প্রশাসন, প্রার্থী ও রাজনৈতিক দলগুলোর সদিচ্ছা থাকাটা জরুরী। আমরা সবাই কলারোয়ার সন্তান, দিন শেষে আমরা আমরা-ই।’

তালা উপজেলার ১১ টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪৯, সাধারণ সদস্য পদে ৪৬১ এবং সংরক্ষিত সদস্য পদে ১৩৫ জন প্রার্থী মিলে মোট ৬৪৫ প্রার্থীর মেনানয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছে স্ব স্ব ইউনিয়নের রিটার্ণিং কর্মকর্তাবৃন্দ। শুক্রবার (১৯ মার্চ) মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে সাধারণ সদস্য পদে ঋণ খেলাপীর দায়ে ১ জনের মনোনয়নপত্র অবৈধ ঘোষণা করেন রিটার্ণিং কর্মকর্তা। তিনি হলেন তালা সদর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের প্রার্থী মোঃ শফিকুল ইসলাম।
তালা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রাহুল রায় জানান, মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই ১১টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪৯, সাধারণ সদস্য পদে ৪৬১ এবং সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১৩৫ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৪ মার্চ। আগামী ১১ এপ্রিল অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে ২ লাখ ৩০ হাজার ৮২৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন বলে জানান এই কর্মকর্তা।
উল্লেখ্য, তালা উপজেলায় ১১ টি ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদে ৪৯ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। এরমধ্যে ধানদিয়ায় ৪ জন, নগরঘাটা ৫, সরুলিয়া ১১, তেঁতুলিয়া ৪, তালা সদরে ৩, ইসলামকাটি ৫, মাগুরা- ৫, খলিষখালী ৪, খেশরা ২, জালালপুর ২ এবং খলিলনগর ইউনিয়নে ৪ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন।

Check Also

শ্যামনগরে সড়কে ঝরল ভ্যানচালকের প্রাণ

নিজস্ব প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা শ্যামনগরে পল্লীবিদুৎএর খুটির লেগে এক ভ্যানচালকের মৃত্যু হয়েছে। নিহত ভ্যানচালক শ্যামনগর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

***২০১৩-২০২১*** © ক্রাইমবার্তা ডট কম সকল অধিকার সংরক্ষিত।